ইসলামিক প্রশ্ন উত্তর: ভর্তির সময় সন্তানের বয়স কমানো যাবে কি?

আমাদের দেশে অভিভাবকরা সাধারণত সন্তানদের প্রকৃত বয়স বাদ দিয়ে দুই/তিন বছর কমিয়ে প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করান। অনেকে আবার ৫ম বা ৮ম শ্রেণিতে রেজিষ্ট্রেশনের সময় বয়স কমিয়ে দেন। আবার জন্ম নিবন্ধন সনদে বয়স কমিয়েও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বয়স কমিয়ে দেয়া হয়। জানার বিষয় হলো

এভাবে বয়স কমানো ইসলাম সমর্থন করে কী?
আমি একজন চাকুরীজীবী। আমার জানা মতে আমার বয়স ২/৩ বছর কমিয়ে দেয়া হয়েছে। ফলে আমি অতিরিক্ত যে সময় চাকুরি করার সুযোগ পাচ্ছি, এ বাড়তি সময়ে চাকুরী করে যে বেতন পাব তা আমার জন্য বৈধ হবে কি? বয়স কমিয়ে বাড়তি সময় চাকুরী করা অন্যের হক নষ্ট করা হচ্ছে না তো?
উত্তর : ক. যেকোনো পন্থায়ই হোকÑ বয়স কমানো মিথ্যা ও ধোঁকার অন্তর্ভূক্ত। তাই বয়স কমানো বৈধ নয় বরং হারাম।
আপনার বয়স নিজে কম না করে থাকলে, সে কারণে আপনি গুনাহগার হবেন না। আর বয়স কমানোর মাধ্যমে অতিরিক্ত যে সময় চাকুরী করার সুযোগ পাচ্ছেন সে সময়ের বেতন গ্রহণ করা আপনার জন্য বৈধ হবে। এবং তার কারণে অন্যের হক নষ্ট করার গুনাহ আপনার হবে না। তবে বিষয়টি স্পষ্ট জানা থাকলে চাকুরী থেকে দ্রæত অব্যহতি নেয়া ভালো। [তিরমিজি : ২/৩৮৯, বাদায়েউস সানায়ি : ৯/৩২৯, আল বাহরুর রায়েক : ৮/২]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *