মাকে ছুরি মারলো পেটের ছেলে

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় মাকে ছুরিকাঘাতের অভিযোগে ছেলে শরিয়াজ্জামান মিয়াকে (৪০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। সোমবার (১৫ জানুয়ারি) বিকাল ৩টার দিকে আদালত এ নির্দেশ দেন। সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতিয়ার রহমান এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, গত রবিবার (১৪ জানুয়ারি) বিকালে শরিয়াজ্জামানসহ চার জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা করেন শরিয়াজ্জামান মিয়ার মা ছলেখা বেওয়া। এর আগে ঘটনার দিন ১৩ জানুয়ারি শরিয়াজ্জামান মিয়াকে আটক করা হয়।
শরিয়াজ্জামান মিয়া সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের বিশ্বাস হলদিয়া গ্রামের মৃত খোকা মিয়ার ছেলে।
শরিয়াজ্জামান মিয়ার মা ছলেকা বেগম বলেন, ‘কাগজপত্র ঠিক থাকলেও জমি নিয়ে মমতাজ আলীর সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলছিল। প্রায়ই বিরোধপূর্ণ জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা করতো মমতাজ আলী। জমি রক্ষাসহ দ্বন্দ্ব নিরসনের জন্যই হয়তো শরিয়াজ্জামান তাকে ছুকিকাঘাত করেছে।’ কিন্তু ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করলেও ঘটনার জন্য মূলত মমতাজ আলীকে দায়ী করেছেন তিনি।
মমতাজ আলীর দাবি, সেদিন শরিয়াজ্জামানের সঙ্গে কথা কাটাকাটি ছাড়া কিছুই হয়নি। কিন্তু হঠাৎ করেই আমাদের ফাঁসাতে স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে শরিয়াজ্জামান তার মাকে অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন। ঘটনার সময় স্থানীয় জনতা তাকে আটক করে পুলিশে দেয়।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশী মমতাজ আলীর সঙ্গে শরিয়াজ্জামানের বিরোধ চলছিল। গত শনিবার (১৩ জানুয়ারি) মমতাজ আলী ওই জমি দখলে নিতে গেলে শরিয়াজ্জামান ও তার মা বাধা দেয়। এসময় মমতাজ আলীর সঙ্গে শরিয়াজ্জামানের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে মমতাজ উদ্দিনকে ফাঁসাতে শরিয়াজ্জামান তার মা ছলেখাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। এতে ছলেখা বেওয়ার হাতের কবজি ও মাথা কেটে যায়। ঘটনার সময় স্থানীয় লোকজন শরিয়াজ্জামানকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
আহত ছলেখা বেওয়া রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এর আগে ছলেখাকে প্রথমে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *