মুসা নবীর সাথে ইবলিশ শয়তানের সাক্ষাৎকার

নবী করিম (দ) বলেন, একদা পাপিষ্ঠ
ইবলিশ,হযরত মূসা (আঃ) নবীর নিকট উপস্থিত হয়ে বলতে লাগলঃ ‘হে মূসা (আঃ) নবী আপনাকে আল্লাহ তা’য়ালা রিসালত ও নবুয়তের সম্মানে ভূষিত করেছেন, আপনার সাথে সরাসরি কথা বলেছেন।’ হযরত মূসা (আঃ) বললেন, তা অবশ্যই ; কিন্তু তোমার উদ্দেশ্য কি? তুমি আমার কাছে কি চাও? এবং তুমি কে?’ ইবলিশ বললো, -‘হে মূসা ! আপনি আপনার প্রভুর কাছে বলুন যে, আপনার একজন মাখলুক তওবা করতে চায়।’ তখন আল্লাহ তা’য়ালা মূসা (আঃ) এর নিকট ওহী প্রেরণ করলেনঃ ‘হে মূসা! তুমি তাকে বলে দাও যে, আল্লাহ তা’য়ালা তোমার দরখাস্ত শ্রবণ করেছেন। অতঃপর তাকে হুকুম কর, সে যেন আদম এর মাজারে সম্মুখে রেখে সিজদা করে। যদি সে এভাবে সিজদা করে নেয়, তা হলেও আমি তার কবূল করে নিবো এবং তার সমস্ত গুনাহ মাফ করে দিবো।

‘ হযরত মূসা (আঃ) ইবলীসকে এ কথা জানালে সে
ক্রোধে অগ্নিশর্মা হয়ে গেল এবং দম্ভের সাথে বলতে লাগল, ‘হে মূসা ! আমি আদমকে জীবিত থাকতে সিজদা করি নাই, এখন তার মৃত্যুর পর আমি তাকে সিজদা করতে পারি না।’ * এক রেওয়াতে বর্ণিত আছে, – আল্লাহ তা’য়ালা ইবলীশকে এক লক্ষ বৎসর পর পর দোযখ হতে বাহিরে আনয়ন করবেন এবং হযরত আদাম (আঃ) কে ও বাহিরে আনা হবে। অতঃপর তাকে সিজদা করার হুকুম করা হবে। তখনও বার বার ইবলিশ তা করতে অস্বীকার করবে। এভাবে পুনঃ পুনঃ জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। ( ইবনে কাসীর,১১৬২, ইবনে মাজা- ৭৩৪৮) * আল্লাহ আমাদের সবাইকে বুঝার
তৌফিক দান করুক….আমিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *