১৩ বছর বালকের দুমুখের অবিশ্বাস্য কীর্তি !

চিকিৎসা বিজ্ঞানে মাঝেমাঝে এমন ঘটনা ঘটে, যার কোনও ব্যাখ্যা পাওয়া যায় না। সেই রকম ঘটনারই সাক্ষী থাকল এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিসুরি স্টেট। পুরো ঘটনার নায়ক মিসুরি স্টেটর ট্রেস জনসন। দুটো মুখ নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছিল জনসন। চিকিৎসাবিজ্ঞানে এমন ঘটনা বিরলের মধ্যে বিরলতম।

চিকিৎসকরা তার বাঁচার আশা ছেড়েই দিয়েছিলেন। তবে সেই বালকই সবাইকে অবাক করে নিজের ১৩তম জন্মদিন পালন করল। ব্রিটেনের এক ট্যাবলয়েডে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় এমন রোগকে বলা হয় ‘কনজেনিটাল ডিসঅর্ডার ক্র্যানিয়োফেসিয়াল ডুপ্লিকেশন’। এমন রোগে শিশু জন্মগ্রহণের সঙ্গে সঙ্গেই মারা যায়। ট্রেসও এই রোগের শিকার ছিল। ১৪বার ভিন্ন ভিন্ন ডায়াগনসিসের পরে ধরা পড়ে ট্রেসের এই বিরলতম রোগ।

জন্মের পরেই একাধিক অস্ত্রোপচার করা হয় তার। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমেই মুখের গহ্বর কমিয়ে আনা হয়, ব্রেনে যাতে চাপ না পড়ে সেজন্য মুখাবয়বেও পরিবর্তন আনা হয়। সবাইকে অবাক করে দিয়ে পরিবারের সঙ্গেই ট্রেস এবার নিজের ১৩তম জন্মদিন পালন করে দেখাল। তার চিকিৎসার খরচ জোগানোর জন্য ট্রেসের পরিবার ‘গো ফান্ড মি’ নামে একটি পেজ তৈরি করেছে। যেখানে যে কেউ অর্থ সাহায্য করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *