জনগনের কাছে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির হাল: ৬১৮ প্রতিশ্রুতির মধ্যে বাস্তবায়ন মাত্র ৫২ টি!

12241320_439626959562502_3664844243039582009_n

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণকে যে প্রতিশ্রুতি দেন তার খুব কমই বাস্তবায়িত হয়। গত সাত বছরে প্রধানমন্ত্রী ৬১৮টি প্রতিশ্রুতি ও নির্দেশনা দিয়েছেন। এর মধ্যে গত সাত বছরে মাত্র ৫২টি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়িত হয়েছে।

আজ বুধবার দশম জাতীয় সংসদের অষ্টম অধিবেশনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো আবদুল ওদুদের প্রশ্নের জবাবে সংসদকে এ তথ্য জানান প্রধানমন্ত্রী।

আবদুল ওদুদ প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘২০০৮ সালে মহাজোট ক্ষমতায় আসার পর থেকে এখন পর্যন্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাসহ বিভিন্ন জেলা সফরকালে জনসভা মঞ্চে যে সব উন্নয়নমূলক কাজের প্রতিশ্রুতি আপনি দিয়েছেন এই পর্যন্ত তার কতগুলো বাস্তবায়িত হয়েছে?

জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, আমি সর্বমোট ৬১৮টি প্রতিশ্রুতি ও নির্দেশনা প্রদান করি। ইতোমধ্যে ৫২টি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়িত হয়েছে।

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

ইশ্রাত মঞ্জিল

ইশ্রাত মঞ্জিল, শাহবাগ, ঢাকা। আনুমানিক ১৮৮০। এ ভবনটি পুনঃনির্মান করে সেস্থানে গড়ে উঠেছে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়।

12247068_10207561237576367_350131540520095632_n

সমাজে প্রচলিত কিছু জাল হাদিস

সমাজে প্রচলিত কিছু জাল হাদিস

১। দেশ প্রেম ঈমানের অংগ।

২।আসরের পর লেখাপড়া না করা।

৩। শহীদের রক্তের চেয়ে জ্ঞানীর কালি উত্তম।

৪। আমার উম্মতের আলিমগন বনী ইসরাইলের নাবীগনের মত।

৫।আলেমের ঘুম ইবাদত।৬।চীন দেশ হলেও জ্ঞান সন্ধান কর।

৭। ভক্তিতেই মুক্তি।

৮। কিছু সময় চিন্তা-ফিকর করা হাজার বতসর ইবাদত থেকে উত্তম।

৯। যার পীর নেই, তার পীর শয়তান।

১০। রাতের কিছু সময় ইলম চর্চা সারা রাত ইবাদতের চেয়ে উত্তম।

১১।সালাত মুমিনদের মি’রাজ।

১২। এক ওয়াক্ত স্বালাত আদায় না করলে এক হুকবা শাস্তি প্রদান করা হবে।

১৩।স্বামীর পায়ের নিচে স্ত্রীর বেহেশত।

১৪।নবজাতকের বাম কানে একামত প্রদান।

১৫।দরুদে মাহি, দরুদে তাজ, দরুদে হাক্কানি, তুনাজ্জিনা জাল।

১৬। দোয়ায়ে আহাদ নামা, দোয়ায়ে হিযবুল বাহার জাল।

১৭। মৃত্যুর পরে লাশের নিকট কুরআন তিলাওয়াত করা।

১৮। যে মসজিদে দুনিয়াবী কথা বলবে, আল্লাহ তার চল্লিশ বছরের আমল বরবাদ করে দিবেন।

১৯।যে ব্যক্তি তার পিতা-মাতা উভয়ের কবর অথবা যে কোন একজনের কবর প্রত্যেক জুমু’আর দিবসে যিয়ারতকরবে। যাকে ক্ষমা করে দেয়া হবে এবং তাকে সতকর্মশীলদের তালিকায় লিপিবদ্ধ করা হবে।

২০।আমার উম্মতের মতভেদ রহমত সরুপ।

২১। আমার সাহাবীগন নক্ষরের ন্যায়, তোমরা তাদের যে কোন একজনের অনুসরন করবে সঠিক পথ প্রাপ্ত হবে।

২২।যে ব্যক্তি নিজেকে চিনেছে, সে তার প্রভুকে চিনতে সক্ষম হয়েছে।

২৩।আপনি(নাবী(স)) নাহলে আমি আসমান-যমিন সৃষ্টি করতাম না।

এরুপ আরো অনেক জাল হাদিসের উপর আমরা বিশ্বাস স্থাপন করেছি এবং আমল করছি। আরো জানার জন্য পাঠ করুনঃ১। যঈফ ও জাল সিরিজ- নাসির উদ্দীন আলবেনী(র)২। হাদিসের নামে জালিয়াতি- আব্দুল্লাহ

11535909_504886889662369_3172527930470573947_n

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

বিদ্যুৎবিহীন রুটি মেকার !!

হুমায়ুন কবিরের সাড়া জাগানো এই আবিষ্কারের নাম ‘রুটি মেকার’।
এতে অপচয় হয় না বিদ্যুৎ ।
মাত্র ১ সেকেন্ডে ১ টি রুটি তাও আবার আটার কাই টা গোল করার প্রয়োজন নেই!!!
লাইবা রুটি মেকারের বিশেষ সুবিধা-
১. সিদ্ধ ও কাঁচা আটার রুটি খুব ভালো হয়।
২. সিদ্ধ চালের গুঁড়ার রুটিও খুব ভালো হয়।
৩. দেশি ও বিদেশি রেসিপি অনুসারে বিভিন্ন ধরনের রুটি তৈরি করা যায়।
৪. পাতলা রুটি হয়।
৫. বড় আকারের রুটি তৈরি করা যায়।
৬. বিদ্যুৎ খরচ নেই।
৭. আমাদের অভ্যস্ত স্বাদের রুটি তৈরি করা যায়।
৮.স্বাস্থ্য সম্মত ও সুস্বাদু রুটি তৈরী করা যায়। তাই খেতে মজা।
৯. অল্প পরিশ্রমে বেশী রুটি তৈরী করা যায়। তাই সময় ও শ্রম বাঁচে।
১০. সকল রুটি একই মাপের হয় বিধায় একই রকম ফোলা ও ভাজা হয়।
১১. অল্প জায়গায় সুবিধামত ভাবে বসিয়ে ব্যবহার করা যায়।
১২. যে কেউ অনায়াসে এই রুটি তৈরীর যন্ত্র চালাতে পারে।
১৩.মেশিনের গ্যারান্টি অনেক বছর।
১৪.১৫-২০ দিন পর পর রুটি-পেপারটি পরিবর্তন করতে হয় বলে এটি অনেক বছর নতুন থাকবে।
১৫.যেকোনো আকারের আটার গোল্লাকে সম্পূর্ণ গোলাকার বানিয়ে দেয়।

সীমাবদ্ধতা-
‘লাইবা রুটি মেকার’ একটি বিদ্যুৎবিহীন রুটি মেকার তাই এটি রুটি ভেজে দেয় না।

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ চার জনকে বেধাড়ক পিটাল ছাত্রলীগ

রাবির হলে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ চার জনকে বেধাড়ক পিটাল ছাত্রলীগ মূল্যবান সামগ্রী লুটপাট

12227829_985638138190817_5293805073475131398_n

গভীর রাতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আব্দুল লতিফ হল ছাত্রলীগের ক্যাডাররা মুখে গামছা-রুমাল পেচিয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নূর জাহিদ সরকার নিয়নসহ ৪জনকে লোহার হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে। বুধবার রাত আড়াইটার দিকে হলের ৩০১ নং কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে আহতদের হাসপাতালে নেওয়ার পরে পুনারয় এই কক্ষের দরজা ভেঙ্গে ল্যপটপ, গিটারসহ মূল্যবান জিনিস নিয়ে গেছে হামলাকারীরা বলে দাবি করেছে আম্মান। ঘটনায় গুরুতর আহতদের নাম হলো, গত কমিটির শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক নূর জাহিদ সরকার নিয়ন, লোক প্রশাসন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী নূল কুতুবুল আলম সবুজ, দর্শন মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আম্মান, ইতিহাস মাস্টার্সের শিক্ষার্থী নিশান চৌধুরী। এরা সবাই লতিফ হল ছাত্রলীগের পূর্বের সভাপতি প্রার্থী শামীমের অনুসারী। প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক শিক্ষার্থী সূত্রে জানা যায়, পূর্ব শক্রুতার জের ধরে রাত আড়াইটার দিকে হল ছাত্রলীগ সভাপতি মিজানুর ইসলামের অনুসারী নিরব (ভাষা-৪র্থ বর্ষ), সংগীত (নৃ-বিজ্ঞান-১ম বর্ষ), নাজমুল(ভাষা-৩য় বর্ষ), সনোয়ার, সমীরণ কুমার ম-ল (ফাইন্যান্স এ- ব্যাংকিং-২য় বর্ষ) সহ ১০-১২ জন মুখে গামছা-রুমাল পেচিয়ে রোড-হাতুড়িসহ দেশি অস্ত্র নিয়ে ৩০১ নং কক্ষে প্রবেশ করে সবাইকে রুম থেকে বের হয়ে আসতে বলে । তারা বের হতে অস্বীকৃতী জনালে এলোপাতাড়ীভাবে রড-হাতুর দিয়ে আঘাত করতে থাকে। ঘটনাস্থল থেকে নিয়ন ও আম্মান পালিয়ে নিচ তলায় হলের পুলিশ কক্ষে যেয়ে আশ্রয় নেয়। এসময় ছাত্রলীগের ক্যাডাররা সবুজ ও নিশানকে লোহার রোড-হাতুড়ি দিয়ে এলোপাতাড়ি শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটাতে থাকে। এক পর্যায়ে সবুজকে পিটাতে পিটাতে তিন তলা থেকে দুুই তলায় নিয়ে আসার সময় বারান্দায় লুটিয়ে পড়ে। তখন ঘটনাস্থলে হলের পুলিশ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হলে মুখোশধারীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পরে হল পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে এ্যাম্বুলেন্সের সহযোগিতায় পুলিশ তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্র পাঠিয়ে দেয়।
এদিকে আহতদের হাসপাতালে নেওয়ার পরে পুনারয় এই কক্ষের দরজা ভেঙ্গে এই ল্যপটপ, দুইটি গিটার, পাঁচ হাজার টাকা এবং ট্যাংক নিয়ে চলে যায় বলে আম্মান অভিযোগ করেছে। আহত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নিয়ন বলেন, আমার আগামী শুক্রবার রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকে পরীক্ষা আছে। তাই আমিসহ আরও দ্ইুজন পরীক্ষার্থী হলের ছোট ভাই আম্মানের কাছে থাকার জন্য আসি। হঠাৎ কয়েকজন মুখে গামছা পেচিয়ে রড হাতুর নিয়ে প্রবেশ করে। আমি কিছুু বুঝে উঠার আগেই তারা হামলা চালায়। আমি ‘চেচিয়ে চেচিয়ে’ পরিচয় দিলেও বারবার আমাদের সকলকে আঘাত করতে থাকে। নবাব আব্দুল লতিফ হলের প্রাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. বিপুল কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। পরবর্তীতে যাতে এই ঘটনায় সৃষ্টি না হয় তার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

মুখোস উম্মোচিত হল আইএস এর

12241595_985629624858335_8837417143446600576_nআকা ইলিয়ট শিমন থেকে আইএস খলিফা আবুবকর বাগদাদি ! উম্মোচিত হল ইসরাইলী নীলনকশা দুনিয়াব্যাপী ‘ইসলামী খেলাফত’ প্রতিষ্ঠার যুদ্ধের স্বঘোষিত খলিফা ও সন্ত্রাসী সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) নেতা খলিফা আবুবকর আল বাগদাদি মুসলমান নন। তিনি একজন ইহুদি। তার আসল নাম আকা ইলিয়ট শিমন। এর চেয়ে বিস্ময়কর তথ্য হচ্ছে, বিশ্বব্যাপী ‘ইসলামী শাসনব্যবস্থা’ কায়েমের আদর্শে মত্ত আইএস ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সৃষ্টি। এ জঙ্গিগোষ্ঠীর শীর্ষস্থানীয় নেতাদের প্রত্যেকেই মোসাদের কাছে প্রশিক্ষণ নিয়েছে। মোসাদের প্রশিক্ষণ পদ্ধতিতেই আইএস জঙ্গিদের ‘যুদ্ধকৌশল’ শেখানো হয়। সুসংগঠিত এ জঙ্গিগোষ্ঠীটি ‘ইসলামিক স্টেট’ নামে আত্মপ্রকাশের আগে যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান দলের সিনিয়র সিনেটর ও ২০০৮ সালের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী জন ম্যাককেইনের সঙ্গে বেশ কয়েকবার বৈঠক করেছে। গোড়ার দিকের ওই গোপন বৈঠকগুলোতে মোসাদের বেশ কয়েকজন সদস্য ও আইএসপ্রধান বাগদাদি উপস্থিত ছিলেন। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যম ও গবেষণা প্রতিবেদন ঘেঁটে বিশ্বব্যাপী আতংক সৃষ্টি করা ইসলামিক স্টেট ও এর প্রধান খলিফা আবুবকর আল বাগদাদির পরিচয় নিয়ে এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র সাবেক কর্মকর্তা এডওয়ার্ড স্নোডেনের ফাঁস করা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার (এনএসএ) গোপন নথিতেও এ ব্যাপারে উল্লেখ আছে বলে জানিয়েছে ‘আমেরিকান ফ্রি প্রেস’ নামের ওয়েবসাইট। সন্ত্রাসবাদের ইতিহাসে সবচেয়ে ধনী সংগঠন বলে পরিচিত আইএসের উত্থান হয় গত বছরের জুনে। ইরাক ও সিরিয়ার বিশাল অংশ দখলে নিয়ে ইসলামিক স্টেট নাম দিয়ে খেলাফত ঘোষণা করেন বাগদাদি। প্যারিসে ভয়াবহ হামলার পর একই কথা বলেছেন কিউবার সাবেক নেতা ফিদেল ক্যাস্ত্রো ও মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। সংবাদ সম্মেলন করে দু’জনই বলেছেন, আইএস ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসী অস্ত্র। বিশ্বব্যাপী নিজেদের আধিপত্য বিস্তার ও স্বার্থসিদ্ধির জন্য আইএস নামের এ ভয়ানক কালসাপ মাঠে নামিয়েছে তারা। ইসলামিক স্টেট সৃষ্টির এক বছর আগে ২০১৩ সালের জুনে যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান সিনেটর জন ম্যাককেইন সিরিয়ায় আবুবকর আল বাগদাদিসহ অর্ধডজন শীর্ষ জঙ্গি নেতার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেন। সম্প্রতি সেই বৈঠকের ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ইউটিউবে। মার্কিন প্রচারমাধ্যম এবিসি নিউজ ও সিএনএনের একটি ভিডিও স্নাপশটে এ ছবির ব্যাপারে প্রমাণ পাওয়া গেছে।
আমেরিকান ফ্রি প্রেসের প্রতিবেদন জানায়, ইহুদি পিতা-মাতার কোলে জন্ম নেন বাগদাদি। এডওয়ার্ড স্নোডেনের ফাঁস করা তথ্যানুযায়ী, বাগদাদিকে টানা এক বছর সামরিক প্রশিক্ষণ দিয়েছে মোসাদ। একই সময়ে আরবি ভাষা ও ইসলামী শরিয়ার ওপর কোর্স করেছেন বাগদাদি। এ সময় তিনি ইব্রাহিম ইবনে আওয়াদ ইবনে ইব্রাহিম আল বদরি নাম ধারণ করেন। তবে বাগদাদির পরিচয় সম্পর্কে ছড়ানো হয়েছে- তিনি ১৯৭১ সালের ২৮ জুলাই ইরাকের সামারায় জন্মগ্রহণ করেন। বাগদাদ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইসলামিক স্টাডিজে মাস্টার্স ও পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ইরাক আক্রমণের সময় সামারায় একটি মসজিদে খতিবের দায়িত্ব পালন করেন বাগদাদি। পরে তিনি ‘আমিরে দায়েশ’ উপাধি গ্রহণ করেন। এডওয়ার্ড স্নোডেন প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের গোপন দলিলের বাগদাদির তথ্য প্রথম প্রকাশ করে মধ্যপ্রাচ্যের জনপ্রিয় ইন্টারনেট রেডিও আজিয়াল ডটকম। পরবর্তী সময়ে ইরানের গোয়েন্দা সংস্থা এ তথ্যের সত্যতা স্বীকার করে। ইরানি গোয়েন্দা সংস্থার পর্যালোচনা নিয়ে এ সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় আরবি পত্রিকা ইজিপ্রেসে। যুক্তরাষ্ট্রের এবিসি নিউজ প্রচারিত একটি ভিডিওর বরাত দিয়ে সোশিও-ইকোনমিক হিস্ট্রি নামের একটি ওয়েবসাইট দাবি করেছে, মার্কিন প্রভাবশালী সিনেটর জন ম্যাককেইন আবুবকর আল বাগদাদিসহ কয়েকজন আইএস কর্মকর্তা ও সিরিয়ার বিদ্রোহী কয়েকজন নেতার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছেন। ২০১৩ সালের জুনে যখন এ বৈঠকটি হয়, তখন বাগদাদির মুখে লম্বা দাড়ি ছিল না। ওই বৈঠকে বাগদাদির সহযোগী আইএসের শীর্ষ সন্ত্রাসী মোহাম্মদ নূরও উপস্থিত ছিলেন। উইকিপিডিয়ায় প্রদর্শিত আবুবকর বাগদাদির ছবির সঙ্গে ওই ছবির মিল পাওয়া গেছে। মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী গণমাধ্যম আল আরাবিয়াও ওই ছবিটি প্রকাশ করেছে। সিএনএনের একটি ভিডিওতেও বাগদাদির সঙ্গে মুখোমুখি কথা বলতে দেখা যায় জন ম্যাককেইনকে। গ্লোবাল রিসার্চ নামের একটি গবেষণা ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়েছে, ২০০৪ সাল থেকে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠে আবুবকর আল বাগদাদি। ২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের বুস্কা কারাগারে ছিলেন তিনি। পলিটিসাইট ডটকমের তথ্যানুযায়ী, সিআইএ’র তত্ত্বাবধানেও বাগদাদি সামরিক প্রশিক্ষণ লাভ করেন। ইরাকের উম কাসর এলাকায় মার্কিন কারাগারে সিআইএ তাকে নিয়ে আসে। সেখান থেকে ২০১২ সালে জর্ডানের একটি গোপন ক্যাম্পে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের স্পেশাল ফোর্স কমান্ড বাগদাদিসহ তার সহযোগী অনেককে প্রশিক্ষণ দেয়। আইএসের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক সহিংসতার মাধ্যমে ইসরাইলের ভূখণ্ড বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে মোসাদের। আল কায়দার সাবেক শীর্ষ কমান্ডার ও ইসলামিক ডেমোক্রেটিক জিহাদ পার্টির প্রতিষ্ঠাতা নাবিল নাইম বৈরুতের টিভি চ্যানেল আল মাইদিনকে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আল কায়দার বর্তমান নেতারা ও আইএস সিআইএ’র হয়ে কাজ করছে। এ উদ্দেশ্যে শিয়া-সুন্নি বিরোধ তারাই উসকে দিচ্ছে বলেও জানান তিনি।

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

জামায়াতের হরতাল চলছে, রাজধানীর রাস্তা প্রায় ফাকা

12243527_985587148195916_2670630998599819611_n

জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার প্রতিবাদে দলটির ডাকে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে।
হরতালের শুরুতে বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীতে সীমিত সংখ্যক যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। পাবলিক বাসের সংখ্যা কম, ব্যক্তিগত গাড়িও খুব বেশি চলছে না।
তবে হরতালকে কেন্দ্র করে রাজধানীতে কোনো ধরনের সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি।
হরতালে সহিসংতা মোকাবিলায় প্রস্তুত রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অন্যান্য দিনের তুলনায় রাজধানীতে পর্যপ্ত সংখ্যাক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মোতায়েন করা হয়েছে।
গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বুধবার দুপুরে এ হরতালের ডাক দেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর মকবুল আহমাদ।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘জামায়াতকে নেতৃত্বশূন্য করার জন্য সরকার জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করে বিচারের নামে প্রহসনের আয়োজন করেছে। সরকারী ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ। সরকার তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করার উদ্দেশ্যে তথাকথিত মানবতাবিরোধী অপরাধের মিথ্যা অভিযোগে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করে। তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ নেই। কোন প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষীও নেই। এতদসত্ত্বেও সরকারের মিথ্যা মামলায় মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়েছে।’
‘এ রায়ের বিরুদ্ধে তিনি রিভিউ আবেদন করলে তা খারিজ করে দিয়ে মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। এ রায়ে মুজাহিদ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। মুজাহিদকে হত্যার সরকারী ষড়যন্ত্র বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে,’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।
বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘এ অন্যায় ও ষড়যন্ত্রমূলক সরকারী হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আমি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার সারা দেশে সর্বাত্মক শান্তিপূর্ণ হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করছি।’
‘হাসপাতাল, এম্বুলেন্স, ফার্মেসি ইত্যাদি হরতালের আওতামুক্ত থাকবে,’ উল্লেখ করেন তিনি।

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

মুজাহিদের সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের সাক্ষাতের জন্য আবেদন

জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যদের দেখা করার অনুমতি চেয়ে কেন্দ্রীয় কারাগারে আবেদন করা হয়েছে।
তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট গাজী তামিম জানান, গতকাল সাক্ষাতের জন্য কারা কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে কোন সাড়া না পাওয়া গেলেও আজ ইতিবাচক সাড়া মিলেছে। সেই অনুসারে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদনপত্র দেওয়া হয়েছে। আজই তার সাথে সাক্ষাতের অনুমতি পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি।
এর আগে, আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ও সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মৃত্যুদণ্ড রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে রায় প্রদান করেন।
বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।
এই রায়ের মাধ্যমে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ও সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিচারপ্রক্রিয়া শেষ হয়ে গেল। এখন তারা চাইলে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা আবেদন করতে পারবেন। রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমার আবেদন না করলে বা ওই আবেদন বাতিল হলে সরকার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে পারবে।
কারাবিধি অনুযায়ী, একজন আসামির রিভিউ আবেদন খারিজ হওয়ার পর তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য সাত দিন সময় পেয়ে থাকেন।

12241429_985599628194668_7495967117467253668_n

যারা পোস্টটি পড়েছেন সবাই লাইক দিন
এবং শেয়ার করে অন্যদের পড়ার
সুযোগ করে দিন।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

আবুলের মাতলামি

একদিন আবুল প্রচুর মদ
খেয়ে এসে বউকে চা দিতে বলল ,
বউ চা দিতেই
বউকে ধরে পেটাতে লাগল
,প্রতিবেশীরা মারের
আওয়াজ শুনে ছুটে এসে জিজ্ঞেস করল
কি হয়েছে ? মারছেনকেন ??
:
:
:
:
:
:
আবুল : এই হারামজাদী আমার
চায়ে তাবিজ
মিশিয়েছে-আমাকেবস করবে বলে
,,
,,
,,
,,
বউ : ( কাঁদতে কাঁদতে ) ওটা টি ব্যাগ ছিল !!

teabag-staple

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।