কুষ্টিয়ায় পৌঁছেছে বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল

জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার বামনপাড়ায় একটি বাড়ি ঘিরে রাখলেও পুলিশ এখনো অভিযান শুরু করেনি। আজ বিকেল সোয়া ৪টার দিকে ঢাকা থেকে বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলের সদস্যরা কুষ্টিয়া এসে পৌঁছায়। ইতিমধ্য বাড়িটির আশেপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। ওই বাড়ি থেকে সুইসাইড ভেস্টসহ তিন নারী জঙ্গি ও দুই শিশুকে আটক করেছে পুলিশ।

ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর হোসেন খন্দকার জানান, বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলের সদস্যরা এসে পৌঁছালেই অভিযান শুরু হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে ওই আস্তানায় পুরুষ বা অন্য কেউ থাকার সম্ভাবনা খুবই কম। বোমা তৈরির সরঞ্জামসহ গোলা বারুদের মজুদ থাকতে পারে সেখানে।

কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম মেহেদী হাসান জানিয়েছেন, রাত ১২টার দিকে তারা খবর পায় কুষ্টিয়া ভেড়ামারা তালতলা মসজিদের পাশে একটি বাড়িতে জঙ্গিরা অবস্থান করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে কুষ্টিয়া ভেড়ামারা পুলিশ, র্যাব, কুষ্টিয়া পুলিশ ও ডিবি পুলিশের একটি যৌথ টিম সেখানে অবস্থান নেয়।

পরে ঢাকায় কাউন্টার টেররিজম ইউনিটকে খবর দিলে তাদের একটি টিম রাত আনুমানিক ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। এরপর পুলিশ ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিট যৌথভাবে বাড়ির দিকে মুভ করলে একজন নারী সুইসাইড ভেস্ট পরিহিত অবস্থায় পুলিশের উপর হামলার চেষ্টা চালায়।

এসময় পুলিশ সদস্যরা তা বিস্ফোরিত হওয়ার আগেই তাকে ধরে ফেলে বলে পুলিশ দাবি করেছে। পরে পর্যায়ক্রমে দুই শিশুসহ দুই জন মহিলা ওই বাড়ি থেকে বের হয়ে এসে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

‘আমার এতো অল্প বয়সে বিয়ে করা উচিত হয়নি’

ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস বলেছেন, মধুচন্দ্রিমা সবার জীবনে আসেনা। সম্প্রতি জাগো এফএমে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

অপু বলেন, মধুচন্দ্রিমা সবার জীবনে আসে না। তাদের মধ্যে আমি একজন। এ সময় তিনি আরো বলেন, শাকিব এখনো সাংসারিক হতে পারেনি। ভয়াবহ ব্যস্ত। ও যেন নিজেকে ভুলে না যায়। আর সংসারের জন্য সবাইকে স্যাক্রিফাইস করতে হয়। যেটা আমি করছি।

নিজের জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল নিয়েও কথা বললেন এই অভিনেত্রী।

অপু বলেন, এতো অল্প বয়সে বিয়ে করা আমার উচিত হয়নি। আরেকটু ভেবেচিন্তে, জেনে বুঝে তবেই বিয়ে করা উচিত ছিল। সরকার সবার বিয়ের জন্য বয়স নির্ধারণ করে দিয়েছে। এখন বুঝি, এর একটা কারণ আছে। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে চিন্তা, ভাবনা আর সব কিছুরই একটা পূর্ণতা আসে।

ফাঁস হয়ে গেল শাকিব খানের সাথে অপুর প্রেম ও বিয়ের কাহিনী! (ভিডিও)

ফাঁস হয়ে গেল শাকিব খানের সাথে অপুর প্রেম ও বিয়ের কাহিনী! (ভিডিও)

বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় তারকা জুটি শাকিব খান এবং অপু ইসলাম খান। এই জনপ্রিয় জুটির প্রেম ও বিয়ে নিয়ে রয়েছে চাঞ্চল্যকর সব কাহিনী। এই জুটির প্রেম ও বিয়ের নানা মুখরিত কাহিনীগুলো ফাঁস করলেন স্বয়ং অপু ইসলাম খান। অপু নিজেই তুলে ধরেছেন তাঁদের দু’জনের প্রেম ও বিয়ের নানা গল্প। ভিডিওটি প্রথম আলোর সৌজন্যে উপস্থাপন করা হলো।

ভিডিওঃ-

হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার সেই কালো রাত, দেখুন (ভিডিও)

হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার সেই কালো রাত, দেখুন (ভিডিও)

দিনটা ২০১৬-এর ১ জুলাই, শুক্রবার। রোজা তখন শেষ হয়ে আসছে। চারদিকে ঈদের আমেজ। গুলশানের জনপ্রিয় হলি আর্টিজানেও প্রতিদিনের মত দেশি-বিদেশি অনেক মানুষ সমাগত হয়েছে। সবকিছু চলছিল স্বাভাবিকভাবে। রাত ৮টার কিছু পরেই কুটনৈতিক পাড়ার এই হোটেলে ঢুকে পড়ে একদল সশস্ত্র জঙ্গি। অস্ত্রের মুখে জঙ্গিরা জিম্মি করে ফেলে এই রেস্টুরেন্টে অবস্থানরত দেশি-বিদেশি নাগরিকসহ সকল কর্মীদের।

সংবাদ পেয়ে সেখানে পুলিশ আসে। পুলিশ সদস্যরা তখনও টের পায়নি রেস্টুরেন্টটি জিম্মি করে রেখেছে সশস্ত্র জঙ্গিরা। কিছু না বুঝেই পুলিশ সদস্যরা রেস্টুরেন্টের দিয়ে এগিয়ে যায়। এমন সময় রেস্টুরেন্টে অবস্থানরত সশস্ত্র জঙ্গিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ শুরু করে। একই সাথে জঙ্গিরা মুহুমুহু বোমা বিস্ফোরন ঘটায়। মুহুমুহু গুলি ও বোমার বিকট শব্দে পুরো গুলশান এলাকা কেঁপে উঠে। জঙ্গি হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হোন। আহত হোন আরও অনেক পুলিশ সদস্য।

এরপর সারারাত সশস্ত্র জঙ্গিরা এই রেস্টুরেন্টে অবস্থানরত সকল দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করে রাখে। রাতভর জঙ্গিরা নৃশংষভাবে হত্যা করে ২০ জন নাগরিককে। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ১৭ জন বিদেশি নাগরিক। এর মধ্যে জাপানের ৭ জন, ইতালির ৯ জন ও ভারতের ১ জন নাগরিক নিহত হয়েছেন।

সারা রাত ধরে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা পুরো এলাকা ঘিরে রাখে। রাতভর সেখানে বিরাজ করছিল ভয়াবহ অবস্থা। জঙ্গিদের হাত থেকে জিম্মি দেশি-বিদেশি নাগরিকদের উদ্ধার করার জন্য যৌথ বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন পরিকল্পনা করতে থাকেন। মিডিয়ার কল্যাণে হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে জঙ্গি হামলার ঘটনা বিশ্বের সকল মানুষ জেনে যায়। দেশিয় টেলিভিশন চ্যানেরগুলো এই জঙ্গি হামলা ঘটনার লাইভ সম্প্রচার চালু রাখলেও সরকারের নির্দেশে এক পর্যায়ে লাইভ সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়।

প্রথমে এক দফা গুলি আর বিস্ফোরণের শব্দ হয়। এরপর আর কোনো শব্দ নেই। চারদিক একেবারে নিস্তব্ধ। থেমে থেমে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি পড়ছিল। থমথমে আতঙ্কময় পরিবেশ। ভোর চারটার দিকে আবার গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেল। চারপাশে তখন ঘুটঘুটে অন্ধকার। এর মধ্যেই বৃষ্টির মতো গুলির শব্দ। রেস্টুরেন্টের ভেতরে থাকা জিম্মিদের সম্পর্কে কোন কিছুই জানা যাচ্ছিল না তখন। আর বাইরে তাঁদের স্বজনেরা নির্ঘুম চোখে মিটিমিটি আশা নিয়ে সময় গুনছিলেন।

অবশেষে ২ জুলাই সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে সাঁজোয়া যান নিয়ে দেয়াল গুঁড়িয়ে রেস্টুরেন্টের আঙিনায় ঢুকে পড়ল সেনা কমান্ডোরা। ১২ ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস অপেক্ষার পর শুরু হলো ‘অপারেশন থান্ডার বোল্ট’। প্রচণ্ড গোলাগুলিতে কেঁপে উঠল গোটা গুলশান এলাকা। ১৩ মিনিটের মধ্যে সশস্ত্র জঙ্গিদের কাবু করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এল কমান্ডোরা। অভিযানে একজন জাপানি, দুজন শ্রীলঙ্কান ও ১০ জন বাংলাদেশিসহ ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তার করা হয় একজনকে। আর কমান্ডো অভিযানে নিহত হয় ৬ জঙ্গি। ৫০ মিনিট পর অভিযানের সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়।

২০১৬ সালের ১ জুলাই ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে আরও একটি কালো রাত। এই কালো রাতেই জঙ্গিদের হামলার নতুন অধ্যায় শুরু হয়। এই জঙ্গি হামলার দায় স্বীকার করে ভিডিও প্রকাশ করে আন্তজার্তিক জঙ্গি সংগঠন আএস। যদিও সরকারের দাবী আইএস নয় এই হামলার সাথে জড়িত দেশিয় জঙ্গি সংগঠন। এই কালো রাতে জঙ্গিদের যে নতুন অধ্যায় শুরু হয় তা থেমে থেমে চলেছে পুরো ২০১৬ সালজুড়ে।

ভিডিওঃ-

মীরের সেই ফেসবুক স্ট্যাটাসের জবাব দিল ‘বুদ্ধিজীবী মহল’

মীরের সেই ফেসবুক স্ট্যাটাসের জবাব দিল ‘বুদ্ধিজীবী মহল’

ইদের দিন নামাজের পর বাবার সঙ্গে তোলা সেলফি ফেসবুকে পোস্ট করে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের তারকা ব্যক্তি মীর। এবার ইসলামিক আইন মেনে মীর আফসার আলির সেই স্ট্যাটাসের জবাব দিল ‘পশ্চিমবঙ্গ মুসলিম বুদ্ধিজীবী মহল। ’

ইদের দিন বাবার সঙ্গে তোলা সেলফি ফেসবুকে পোস্ট করে মীর ছবির ক্যাপশন লিখেছিলেন, “আমার আব্বা… আমার আল্লাহ…”। এ নিয়েই শুরু হয় বিতর্ক। মহান আল্লাহর সঙ্গে কোনো মানুষের তুলনা করা চলে না। এই যুক্তিতে মীরের ফেসবুকে পেজের কমেন্ট বক্সে তাঁকে আক্রমণ করতে থাকেন অনেকে। অনেক ক্ষেত্রে শালীনতার সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ায় তৈরি হয়েছিল নয়া বিতর্ক। মীরের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন লেখিকা তসলিমা নাসরিনের মতো ব্যক্তি।

মীরের সেই ফেসবুক স্ট্যাটাসের জবাব
মীরের সেই ফেসবুক স্ট্যাটাসের জবাব

মীরের সেই পোস্ট ঘিরে বিতর্কের রেশ এখনও কাটেনি। এরই মাঝে সেই বিতর্ক নিয়ে মুখ খুলল পশ্চিমবঙ্গ মুসলিম বুদ্ধিজীবী মহল। তাঁদের মতে, মহানবী (সঃ) কেও আল্লাহর কাছাকাছি ভাবাও ইসলাম ধর্ম সমর্থন দেয় না। তুলনা করা অনেক বড় পাপ। সেখানে বাবা-মা তো সামান্য।  সমগ্র বিশ্বের সকল মুসলিমের ক্ষেত্রেই এই নিয়ম প্রযোজ্য। মীর বা পীর কেউই ইসলামিক আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

এক্ষেত্রে উল্লেখ্য, ইদের দিন মীরের সেই বিতর্কিত ছবি নিজেদের পেজে পোস্ট করেছিল পশ্চিমবঙ্গ মুসলিম বুদ্ধিজীবী মহল। যদিও সেখানে মীরের দেওয়া ক্যাপশনের কোনো উল্লেখ ছিল না। সেই পোস্টেও সমালোচনায় সামিল হয়েছিলেন অনেক ধর্মপ্রাণ মুসলিম।

অন্তঃসত্ত্বাকে কিভাবে গাছে বেঁধে নির্যাতন করলো, দেখুন (ভিডিও)

অন্তঃসত্ত্বাকে কিভাবে গাছে বেঁধে নির্যাতন করলো, দেখুন (ভিডিও)

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঈদের পরদিন মঙ্গলবার ভোরে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার রাজগাতী ইউনিয়নের দক্ষিণ কয়রাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্থানীয় আবুল কাশেম ও রবিউলকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার দিনই আটজনকে আসামি করে নান্দাইল মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন নির্যাতিতার স্বামী। মামলার আসামিরা হলো— ঝরনা আক্তার, পারুল আক্তার, আইরিন আক্তার, আবুল কাশেম, দ্বীন ইসলাম, সাইফুল ইসলাম, রবিউল ও বিল্লাল হোসেন। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ওই গ্রামের নির্যাতিতা কল্পনা আক্তারের স্বামী ইজিবাইক চালক সিরাজুল ইসলাম আড়াই বছর আগে প্রতিবেশী আবু বক্করের তিন ছেলে রবিউল আওয়াল, সাইফুল ইসলাম ও দ্বীন ইসলামের কাছে পাঁচ শতক জমি বিক্রি বাবদ এক লাখ বিশ হাজার টাকা নেন। এরপর দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও আর দলিল করে দেননি। এ অবস্থায় ওই জমির দখল চাইতে গেলেই ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছিল সিরাজুল ইসলামের পরিবার। এসব নিয়ে গ্রামে একাধিক শালিস-বৈঠক হলেও সমস্যার সমাধান হয়নি। গত মঙ্গলবার আবারো জমি দখল করতে গেলে কল্পনা দা নিয়ে ভয় দেখায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে প্রতিপক্ষ কল্পনাকে ধরে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করে।

এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলাম জানান, অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। ইতিমধ্যে দুজনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

ভিডিওঃ-