শেন ওয়ার্নেরও যে রেকর্ড নেই, সেটাই করলেন সাকিব

আরেকটি রেকর্ডে সাকিবের নাম।

  জশ হ্যাজলউডের ব্যাটে বলটা লাগতেই সে মুহূর্তটা এল। ইমরুল কায়েস আর কোনো ভুল করলেন না, বলটা মুঠোয় পুরে নিলেন। ব্যস, পাঁচ উইকেট পেয়ে গেলেন সাকিব আল হাসান। ক্যারিয়ারে ১৬তম বারের মতো। সেই সঙ্গে একটি রেকর্ডও হয়ে গেল তাঁর। টেস্ট খেলুড়ে প্রতিটি দলের বিপক্ষেই ইনিংসে পাঁচ উইকেট পাওয়ার রেকর্ড হয়ে গেল সাকিবের।

দশটি দল টেস্ট খেলছে ২০০০ সাল থেকে। ফলে নয়টি দশের বিপক্ষে ইনিংসে পাঁচ উইকেট পাওয়ার সম্ভাবনা এ যুগের বোলারদেরই হয়েছে। সে সৌভাগ্যও কম বোলারের হয়নি। ওয়াসিম আকরাম, গ্লেন ম্যাকগ্রা, শেন ওয়ার্ন, ড্যানিয়েল ভেট্টোরি—তালিকাটা এর চেয়ে অনেক লম্বা হবে। কিন্তু সব কটি দেশের বিপক্ষে ইনিংসে কমপক্ষে পাঁচ উইকেট পাওয়ার কীর্তি করে দেখিয়েছেন মাত্র চারজন। সাকিব তাঁদেরই একজন।
মুত্তিয়া মুরালিধরন, ডেল স্টেইন আর রঙ্গনা হেরাথ—এই তিনজনই এত দিন এমন এক কীর্তির মালিক ছিলেন। সাকিব এত দিন এ তালিকায় ঢুকতে পারছিলেন না একটি কারণেই, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে যে বাংলাদেশ টেস্ট খেলতে পারছিল না। প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয়েই হিসাব মিলিয়ে দিলেন। টেস্টে সব প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই ইনিংসে পাঁচ উইকেট পেলেন সাকিব।
সাকিব সবচেয়ে বেশি ৩ বার পাঁচ উইকেট পেয়েছেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এ কীর্তি তাঁর দুবার।

বিভিন্ন দলের বিপক্ষে সাকিবের পাঁচ উইকেট

প্রতিপক্ষ প্রথম পাঁচ উইকেটের স্পেল ম্যাচের প্রথম দিন কতবার
নিউজিল্যান্ড ৭/৩৬ ১৭.১০.২০০৮
দক্ষিণ আফ্রিকা ৫/১৩০ ১৯.১১.২০০৮
শ্রীলঙ্কা ৫/৭০ ২৬.১২.২০০৮
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫/৭০ ১৭.০৭.২০০৯
ভারত ৫/৬২ ১৭.০১.২০১০
ইংল্যান্ড ৫/১২১ ০৪.০৬.২০১০
পাকিস্তান ৬/৮২ ১৭.১২.২০১১
জিম্বাবুয়ে ৬/৫৯ ২৫.১০.২০১৪
অস্ট্রেলিয়া ৫/৬৮ ২৭.০৮.২০১৭

এখন শুরু হয়ে গেছে বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়ার খেলা, কিন্তু প্রথম দিনের খেলা যারা দেখেন নাই তাদের জন্য

বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া ১ম টেস্ট (প্রথম দিন)

মিরপুরে ১ম দিন শেষে বাংলাদেশ এগিয়ে ২৪২ রানে। অজিদের হাতে আছে ৭ উইকেট। স্পিন মায়াতে অজিদের নাচিয়ে তুলবে সাকিব, মিরাজ, তাইজুল।

৫০০তম আন্তর্জাতিক ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ।

টসের সময় দুই অধিনায়ক

মিরপুরের শের-ই-বাংলা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিং  করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে এটিই প্রথম টেস্ট।

দীর্ঘ ১১ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট খেলছে বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের ৫০ তম টেস্ট এটি। এছাড়া বাংলাদেশের এটি ৫০০ তম আন্তর্জাতিক ম্যাচ।

প্রায় দুই বছর পর টেস্টে ফিরেছেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার নাসির হোসেন। এছাড়া প্রায় এক বছর পর টেস্ট খেলছেন ডানহাতি ফাস্ট বোলার শফিউল ইসলাম। দলে রয়েছে তিন স্পিনার। একাদশ থেকে বাদ পড়েছেন ডানহাতি ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ। এছাড়া একাদশের বাইরে রয়েছেন মোমিনুল হক এবং

এ টেস্ট দিয়ে প্রায় চার বছর পর টেস্টে ফিরলেন সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বাঁহাতি স্পিনার অ্যাশটন অ্যাগার।

বাংলাদেশ একাদশঃ তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম ও মুস্তাফিজুর রহমান

অস্ট্রেলিয়া একাদশঃ স্টিভ স্মিথ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, ম্যাথু রেনশ, উসমান খাজা, পিটার হ্যান্ডসকম, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, ম্যাথু ওয়েড (উইকেটরক্ষক), অ্যাশটন অ্যাগার, প্যাট কামিন্স, নাথান লায়ন ও জশ হ্যাজলউড।

এবার হাথুরুরসিংহের ‘ঘুম হারাম’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বহুল প্রতিক্ষীত সিরিজের প্রথম টেস্টের একাদশ নিয়ে রীতিমতো ‘ঘুম হারাম’ টাইগার বস চন্ডিকা হাথুরুসিংহের! ভোররাতে টুইট করে সেটি জানিয়েছেন তিনি নিজেই।
টুইটারে হাথুরু জানিয়েছেন, ক্রিকেটারদের নিয়ে মানুষের আবেগ’ নাকি সঠিক কম্বিনেশন, দল নির্বাচন নিয়ে এমন সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন তিনি!
 হাথুরু লিখেছেন, উভয়সংকটে পড়েছি। একটি জাতির আবেগ নাকি টিম কম্বিনেশন! নির্ঘুম রাত।’
প্রসঙ্গত, টেস্ট সিরিজের আগে হাথুরু কেন এমন টুইট করলেন, সেটি অজানা নয় কারওরই। প্রথম টেস্টে মুমিনুল হকের স্কোয়াডে না থাকা নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া হয়েছে চারদিকে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দলে জায়গা হয়েছে মুমিনুলের। এবার বাংলাদেশ কোচের সামনে একাদশ সাজানোর চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ উতরে যেতে তাঁর যে গলদঘর্ম অবস্থা, সেটিই উঠে এসেছে টুইট বার্তায়।
বিষয়টা নিয়ে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম রসিকতার সুরে উত্তর দেন, টুইট আমি কমই অনুসরণ করি। ভোর চারটা তো আরও অসম্ভব ব্যাপার। হ্যাঁ, হতে পারে। যে ১৪ জন স্কোয়াডে আছি, সেখান থেকে যেকোনো ১১ জনকে নিয়ে একাদশ সাজানো হবে। কোচের জন্য এমন সমস্যা খারাপ কিছু নয়। যদি কেউ চোটে পড়ে বা সমন্বয়ের কারণে বাদ পড়ে, তবে হাতে ভালো বিকল্প থাকবে। কম দলেই এমন থাকে।

বাংলাদেশের বিপক্ষে দুর্দান্ত সিরিজের অপেক্ষায় স্মিথ

বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি দুর্দান্ত হবে বলে মন্তব্য করেছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। আগামীকাল থেকে ঢাকার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথমটি। ঢাকা টেস্টকে সামনে রেখে আজ সাংবাদিক সম্মেলনে স্মিথ এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, ‘দারুণ একটি সিরিজ হবে। সিরিজটি আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জের। আশা করি আমরা ভালো খেলতে সক্ষম হবো।’
প্রায় ১১ বছর পর তৃতীয়বারের মত দ্বিপক্ষীয় টেস্ট সিরিজে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়া। তাই এই সিরিজকে নিয়ে উত্তেজনার পারুদ আকাশ ছোয়া। সিরিজ শুরুর আগ থেকে বাকযুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিলেন দু’দলের খেলোয়াড়রা। তবে এসব নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে আসন্ন সিরিজটি দুর্দান্ত হবে বলে মনে করেন স্মিথ।
তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় দুর্দান্ত একটি সিরিজ হবে। এটি আমাদের দলের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। আমরা ভারতের মাটিতে কি শিখেছি তা দেখার সুযোগ থাকবে এ সিরিজে। ভারতের উইকেটের সাথে এখানকার উইকেটের যথেষ্ট মিল রয়েছে। আশা করবো সেখানে আমরা যা শিখেছি তা কাজে লাগাতে পারবো এবং এতে কোন সন্দেহ নেই খুবই উপভোগ্য একটি সিরিজ হবে।’
বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানেরর ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ের মন্তব্য নিয়ে প্রশ্ন করা হলে স্মিথ বলেন, ‘অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী, তা কি নয়? আমার মনে হয়, বাংলাদেশ ১শ’ ম্যাচের মধ্যে মাত্র ৯টিতে জিততে পেরেছে। তো এটি অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী ভবিষ্যদ্বানী। কিন্তু তাদের বর্তমান সামর্থ্যের কারণে তারা অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী। তারা দেশের মাটিতে খেলবে। বেশির ভাগ দলই দেশের মাটিতে ভালো খেলে থাকে। বাংলাদেশও দেশের মাটিতে ভালো ক্রিকেট খেলে। তাই এটি আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জের।
মূল লড়াইয়ে নামার আগে একটি অনুশীলন ম্যাচ খেলার কথা ছিলো অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু ফতুল্লার মাঠে বৃষ্টির পানি মাঠে জমে যাওয়ায় প্রস্তুতি ম্যাচটি নিজেদের ইচ্ছাতেই খেলেনি অস্ট্রেলিয়া। প্রস্ততি ম্যাচ না খেললে, টেস্ট খেলার জন্য প্রস্তুত বলে জানালেন স্মিথ, ‘বৃষ্টির কারণে দুভার্গ্যক্রমে আমরা অনুশীলন ম্যাচ খেলতে পারিনি। এটি আমাদের হাতে ছিলো না। তবে আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি। আমরা টেস্ট খেলার জন্য প্রস্তুত।’
ঢাকা টেস্টের উইকেট নিয়েও কথা বলেছেন স্মিথ। তিনি বলেন, ‘উইকেট দেখেছি। বেশ মন্থর মনে হলো। সময়ের সঙ্গে স্পিন ধরবে। আমরা অবশ্য বিস্মিত নই। আমাদের যা দেওয়া হবে, সেটির সঙ্গেই দ্রুত মানিয়ে নিতে হবে। আশা করি, প্রথম টেস্টে আমরা ভালো খেলতে পারব।’
বাংলাদেশ বোলারদের মধ্যে সাকিব ও মুস্তাফিজুরকে হুমকি মনে করছেন স্মিথ। তিনি বলেন, ‘এই কন্ডিশনে সাকিব খুবই ভালো বোলার। মুস্তাফিজুরও ভালো বোলার। তার স্লোয়ার ডেলিভারিগুলো আমার লক্ষ্য করেছি। যদি আমাদের বড় স্কোর করতে হয়, তবে আমাদের ভালো খেলতে হবে।’
টসের উপর গুরুত্ব দিচ্ছেন না স্মিথ। ঢাকা টেস্টের প্রথম সেশনে যাই করেন না কেন, সেটি ভালোভাবে করতে চান তিনি। স্মিথ বলেন, ‘টস আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ নয়। তবে আগামীকাল সকালে আমরা যাই করি না কেন, সেটি ভালোভাবে করতে চাই। টসের উপর আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেই। এটি ৫০-৫০। ’
ঢাকা টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার কেমন হবে তাও বলে দিয়েছেন স্মিথ, ‘আমি নিজে, ডেভিড ওয়ার্নার, ম্যাথু রেনশ, উসমান খাজা, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, ম্যাথু ওয়েড, অ্যাস্টন আগার, প্যাট কামিন্স, নাথান লিঁও ও জশ হ্যাজেলউড খেলব এ ম্যাচে।’

বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে দল ঘোষণা করল পাকিস্তান- আছেন যারা

ঘরের মাঠে বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে আসন্ন ৩ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য ১৬ সদস্যের পাকিস্তান দল ঘোষণা করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।  লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে আগামী ১২, ১৩ ও ১৫ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে এই সিরিজ।

‘স্বাধীনতা কাপ’ নামের এই সিরিজে পাকিস্তান দলের নেতৃত্ব দেবেন সরফরাজ আহমেদ।  পিসিবির দল নির্বাচক কমিটির প্রধান ইনজামাম উল হক বলেছেন, ‘কন্ডিশন এবং সাম্প্রতিক সময়ে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ক্রিকেটারদের পারফরমেন্স বিবেচনা করে দল নির্বাচন করা হয়েছে।  ‘

পাকিস্তান দল: সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক, উইকেটকিপার), ফখর জামান, আহমেদ শেহজাদ, বাবর আজম, শোয়েব মালিক, উমর আমিন, ইমাদ ওয়াসিম, শাদাব খান, মুহাম্মদ নওয়াজ, ফাহিম আশরাফ, হাসান আলী, আমির ইয়ামিন, রুম্মন রইস, উসমান সিনওয়ারি, সোহেল খান।

এর আগেই অবশ্য ঘোষিত হয়েছে বিশ্ব একাদশের দল।  ৭টি দেশের ক্রিকেটাররা আছেন এই দলে।  এতে আছেন, ফাফ দু প্লেসি (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, হাশিম আমলা, স্যামুয়েল বদ্রি, জর্জ বেইল, পল কলিংউড, বেন কাটিং, গ্রান্ট এলিয়ট, ডেভিড মিলার, মর্নে মর্কেল, টিম পাইন, থিসারা পেরেরা, ইমরান তাহির, ড্যারেন স্যামি।

অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ নিয়ে টাইগার ভক্তদের জন্য এক চরম দুঃসংবাদ!

বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলার উদ্দেশ্যে দীর্ঘ ১১ বছর বাংলাদেশের এসেছে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল। প্রস্তুতি ম্যাচের তিন দিন পর ২৭ আগস্ট মিরপুর স্টেডিয়ামে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। দুই ম্যাচ সিরিজে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে হবে দ্বিতীয় টেস্ট।

তবে বাংলাদেশ ক্রিকেট ভক্তদের জন্য রয়েছে ভাঙা দুঃসংবাদ। তার কার বৃষ্টির কারনে প্রথম টেস্ট ম্যাচ মাঠে না গড়ানোর সম্ভব্যনা বেশি। বাংলাদেশের আবহাওয়া অফিসের এক কর্মকর্তা ফোনে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন আজ সকাল থেকে আগামী১০ দিন সারা দেশে বৃষ্টি হওয়ার সম্ভব্যনা রয়েছে।

মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টিপাত সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত চলবে! ফলে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট ম্যাচ মাঠে গড়ানো নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। এমনকি চট্টগ্রাম টেস্টও বৃষ্টির কবলে পড়তে পারে।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে সবশেষ বাংলাদেশ সফরে এসে টেস্ট ম্যাচ খেলেছিল অস্ট্রেলিয়া। এরপর ২০১১ সালে বাংলাদেশ সফরে আসলেও সেবার শুধু ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে অসিরা।

বার্সা ফ্যান কাঁদিয়ে, এবার কোন পথে যাচ্ছে মেসি |

দলবদলের সবচেয়ে বড় ধাক্কাটাই মনে হয় খাচ্ছে বার্সালোনা।  এক নেইমারকে হারিয়েই টালমাটাল অবস্থা বার্সার।  এখন যদি মেসিও চলে যায় তাহলে নিশ্চিত ভাবেই বিপদে পড়বে বার্সালোনা।

ছয় সপ্তাহ আগেই তৈরি হয়ে গেছে চুক্তির কাগজপত্র।  কিন্তু এখনো সেখানে সই করেনি কোন পক্ষই।  সঙ্গে উসমান ডেম্বেলের সঙ্গে বার্সার চুক্তি আর মেসিতে ম্যানচেস্টার সিটির আগ্রহ; সবমিলিয়ে এক জানুয়ারি মেসির বার্সেলোনা ছাড়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

সবচেয়ে বড় খবরটি দিয়েছেন বার্সেলোনার 

সভাপতি পদে নির্বাচন করা প্রার্থী আগুস্তো বেনেদিতো।  স্প্যানিশ এক রেডিওর কাছে দাবি করেছেন, ২০১৮ সালের এক জানুয়ারি বার্সা ছাড়ছেন এই তারকা ফরোয়ার্ড।

এদিকে ডেম্বেলকে বার্সায় ভেড়ানো হয়েছে ১৩৮ মিলিয়ন পাউন্ডে।  চুক্তি শেষ, আনুষ্ঠানিকতা বাকি।  এই খবর চাউর হয়েছে ইএসপিএনের সাংবাদিক ফার্নান্দো পালামোর বরাত দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘যতদূর জানি, চুক্তির আনুষ্ঠানিকতা দ্রুতই শেষ হবে।  কাতালানরা ডেম্বেলের জন্য সবমিলিয়ে ১৫০ মিলিয়ন ইউরো খরচ করবে। ’

যদিও ম্যানচেস্টার সিটি ৩০০ মিলিয়ন ইউরোর রিলিজ ক্লজ পরিশোধ করে হলেও মেসিকে কিনতে প্রস্তুত।  বেশ কয়েক বছর ধরেই ফুটবল জাদুকরকে দলে পেতে মরিয়া ইংলিশ ক্লাবটি।  মেসিকে প্রস্তাব দেওয়ার খবরটিও বেশ ফলাও করে প্রচার করেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষস্থানীয় ক্লাবটি।

ক্লাবটির জন্য শাপেবর হয়ে এসেছে বার্সার নীতি-নির্ধারকদের সঙ্গে মেসির কোন্দল।  এমন সময়ই চুক্তির শেষ অবস্থানে মেসি।  তাই বার্সা ছাড়ছেন মেসি, আলোচনাটা আরও বেশি গাঢ় হচ্ছে।  সাবেক সতীর্থ নেইমারের পথই অনুসরণ করবেন তিনি, এমনটাই ভাবা হচ্ছে। 

স্টিভ স্মিথের ক্যামেরায় বাংলাদেশের ট্রেনযাত্রা

স্টিভ স্মিথের ক্যামেরায় বাংলাদেশের ট্রেনযাত্রা

টেস্ট খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল এখন বাংলাদেশে। প্রস্তুতি ম্যাচ হওয়ার কথা থাকলেও সেটি হচ্ছে না।

তাই আপাতত অবসরযাপনেই ব্যস্ত দলের খেলোয়াড়েরা। এর ফাঁকে বাংলাদেশের সঙ্গেও পরিচিত হচ্ছেন তারা। ঢাকার আসার পর গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েই অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ জানিয়েছিলেন, ‘বাংলাদেশে এসে তিনি রোমাঞ্চিত। ‘

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তার প্রমাণ মিলেছে। বাংলাদেশের ট্রেন যাত্রার ক্যামেরাবন্দী করেছেন স্মিথ। ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে ভিডিওটি আপলোডও করেছেন। রাজধানীর র‍্যাডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেন হোটেলের ছাদ থেকে তোলা সেই ভিডিওতে দেখা গেছে, একটি ট্রেন ছেড়ে যাচ্ছে। ছাদেও অনেক মানুষ।

বিষয়টি নিয়ে স্টিভ স্মিথ ভিডিওটির সঙ্গে মজা করে লিখেছেন, ‘কী আর করা যখন ট্রেনের সব বগিই ভর্তি! তোমাদের দেখছি, বাংলাদেশ। ‘ ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।