INDIA ভারতের অপর নাম কেন ?

INDIA ভারতের অপর নাম কেন ?

আমেরিকাকে ইংরেজিতে America বলে।
জাপানকেও ইংরেজিতে Japan ই বলে।
ভুটানকেও ইংরেজিতে Bhutan ই বলে।
শ্রীলংকাকেও ইংরেজিতে Sri Lanka ই বলে।
বাংলাদেশকেও ইংরেজিতে Bangladesh ই বলে।

নেপালকেও ইংরেজিতে Nepal ই বলে।

শুধু তা’ই নয়, প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানকেও ইংরেজিতে Pakistan বলে।
তবে একমাত্র ভারতকেই ইংরেজিতে India বলা হয় কেন??
India শব্দটা কোথা থেকে এসেছে ৯৯% মানুষেরই তা অজানা রয়েছে।

Oxford Dictionary এর ভাষ্যানুযায়ী…..
INDIA এর মিনিং নিম্নরূপ দেওয়া হল:
I, ইসলাম
N, নে
D, দি
I, ইস মূলক কো
A, আজাদী


অর্থাৎ “ইসলাম নে ইস মুলক কো আজাদী”
( ইসলামই এই দেশকে স্বাধীনতা দিয়েছে। )
এই হল India এর মিনিং।

জেনে নিন একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষার পদ্ধতি

দিল্লির নির্ভয়া ধর্ষণ কাণ্ডের স্মৃতি এখনও মুছে যায়নি দেশবাসীর মন থেকে। কী ভয়ানক অত্যাচার চালানো হয়েছিল মেয়েটির উপরে, তা এখনও ভাবলেই শিউরে উঠবেন যে কেউ। কিন্তু আপনার কি ধারণা ধর্ষণই একটি মেয়ের উপর ঘটে যাওয়া নিকৃষ্টতম সম্ভাব্য ঘটনা? তাহলে জেনে রাখুন, কোনও কোনও সময়ে ধর্ষণের চেয়েও খারাপ কিছু ঘটতে পারে একটি মেয়ের সঙ্গে। যখন কোনও মেয়ে ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন, তখন সত্যিই তিনিই ধর্ষিতা হয়েছেন কি না তা জানার জন্য চলে তাঁর ডাক্তারি পরীক্ষা। সেই পরীক্ষার সময়ে যে ধরনের লাঞ্ছনার সম্মুখীন হতে

মেয়েটিকে, কখনও কখনও তা হয় তাঁর মূল লাঞ্ছনার ঘটনার চেয়েও বেশি লজ্জাজনক। কীভাবে হয় একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা? সম্প্রতি ডাক্তার কে এস নারায়ণ রেড্ডি, ডাক্তার পি মূর্তি তাঁদেরদা এসেন্সিয়ালস অফ ফরেনসিক মেডিসিন এন্ড টক্সিকোলজিবইতে জানিয়েছেন সেই প্রশ্নের উত্তর। সেই বই থেকে ধর্ষণোত্তর ডাক্তারি পরীক্ষার যে বিবরণ দেওয়া হয়েছে তা শিউরে ওঠার মতো। সেই বই থেকে তুলে দেওয়া হল ১০টি তথ্য

. ডাক্তারি পরীক্ষার সময়ে একটি একটি করে রোগিনীকে তার সমস্ত পোশাক খুলে নিতে হয় একজন ডাক্তারের উপস্থিতিতে। একটি কাগজের টুকরোর উপরে দাঁড়িয়ে এই কাজ করতে হয়, যাতে পোশাক খোলার সময়ে মেয়েটির শরীর থেকে নীচে খসে পড়া যে কোনও কিছু বা সমস্ত কিছু ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা যায়। শরীরে লেগে থাকা রক্ত, বীর্য, কাদা, কিংবা ঘামযা কিছু অপরাধের প্রমাণ হিসেবে কাজে লাগতে পারে, সংগ্রহ করা হয় মেয়েটির শরীর থেকে

. সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় আল্ট্রভায়োলেট আলোর সাহায্যে মেয়েটির শরীর পরীক্ষা করে দেখা হয় তার শরীরের কোনও অংশে বীর্যের কোনও চিহ্ন রয়েছে কি না

. শরীরে তৈরি হওয়া কোনও কাটা, ছড়া বা ছাল উঠে যাওয়ার মতো ক্ষতস্থানযেগুলি ধস্তাধস্তির ফলে তৈরি হতে পারে, সেগুলিকে খুঁটিয়ে দেখে পরীক্ষা করা হয়

. শরীরের আঘাতপ্রাপ্ত অংশগুলি, বিশেষত যৌন অঙ্গের ক্লোজ আপ ছবি নেওয়া হয়

. মেয়েটির শরীরের কোনও অংশে কতটা চাপ পড়েছে তার উপর নির্ভর করে কী ধরনের ক্ষত তৈরি হবে সেই অংশে যদি মেয়েটির পিঠে বা কোমরে ছড়ে যাওয়ার দাগ থাকে, তাহলে বুঝতে হবে, মেয়েটিকে কোনও পাথুরে বা শক্ত জমির উপর ফেলে নির্যাতন চালানো হয়েছে স্তনবৃন্তে কামড় বা অন্য কোনও আঘাতের চিহ্নও পাওয়া যেতে পারে

জেনে নিন একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষার পদ্ধতি
জেনে নিন একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষার পদ্ধতি


. তবে সাধারণত লাঞ্ছিতার / অংশের শরীরেই এই ধরনের কোনও ধস্তাধস্তির চিহ্ন দৃশ্যমান হয় না, কারণ ধর্ষণের সময়ে মেয়েরা ভয়ের চোটে সাধারণত আক্রমণকারী খুব একটা বাধা দেয় না। বিশেষত মেয়েটির মাথায় যদি আঘাত করা হয়, কিংবা গলা চেপে ধরা হয়, তাহলে তার বাধা দেওয়ার ক্ষমতা এবং সাহস কমে যায় অনেকটাই। সেসব ক্ষেত্রে তার শরীরের অন্যান্য অংশে তেমন গুরুতর আঘাতের চিহ্ন আর থাকে না

. মেয়েটির যৌন কেশ খুঁটিয়ে পরীক্ষা করে দেখা হয়, সেখানে কোনও পুরুষের যৌন কেশ কিংবা ধুলোবালি ইত্যাদি লেগে রয়েছে কি না। ধর্ষিতা জীবিত হোক বা মৃত, তার অন্তত ১৫২০টি যৌন কেশ সংগ্রহ করা হয় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য

. মেয়েটির মাথার চুলও সংগ্রহ করা হয় পরীক্ষার জন্য

. ধর্ষিতার যৌন কেশ কিংবা যোনির আশেপাশে বীর্যের কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে কি না, তা খুঁটিয়ে দেখা হয়। তুলোর সাহায্যে মেয়েটির যোনিরস সংগ্রহ করে ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য। খুঁটিয়ে দেখা হয় মেয়েটির সতীচ্ছদের অবস্থাও


১০. যদি অপরাধ ঘটে থাকে ৪৮ ঘন্টা কিংবা তারও বেশি সময় আগে, তাহলে একটি কাঁচের রড, তুলো কিংবা স্প্যাটুলার সাহায্যে যোনির ভিতর থেকে সংগ্রহ করা হয় যোনিরস। দেখা হয়, তাতে বীর্য কিংবা রক্তের কোনও নমুনা মিলছে কি না

ভারত এমন একটি দেশ, যেখানে যত ধর্ষণের ঘটনা পুলিশের খাতায় ওঠে, তার চেয়ে অনেক বেশি কেস পুলিশের গোচরেই আনা হয় না। তার একটা অন্যতম কারণ হল, পুলিশে অভিযোগ জানানোর পরে অকল্পনীয় হেনস্থার শিকার হতে হয় অধিকাংশ মেয়েকে। আইনি প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করা যায় না ঠিকই, কিন্তু সেই প্রক্রিয়া কি আর একটু মানবিক হতে পারে না? আইনি প্রক্রিয়ার জটিলতা একটু কমিয়ে মেয়েটিকে সুবিচার দেওয়ার বিষয়টি কি করে তোলা যায় না দ্রুততর? এই প্রশ্ন উঠেছে দেশজুড়ে

ইতালীর হোটেলগুলোতে দম্পতিদের | জন্য বিনামূল্যে ছুটি কাটানোর ব্যবস্থা

ইতালীর আসিসি শহরের কিছু হোটেল দম্পতিদের জন্য বিনামূল্যে ছুটি কাটানোর ব্যবস্থা করছে। তবে শর্ত একটাই ঐ হোটেলগুলোতে থাকার সময় তাদের গর্ভধারণ করতে হবে। স্থানীয় পর্যটন কাউন্সিলের উদ্যোগে এই প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সম্প্রতি দেশটির জন্মহার উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমে যাওয়া এবং একই সাথে স্থানীয় পর্যটন ব্যবসাকে চাঙ্গা করার জন্য দম্পতিদের কাছে এই প্রস্তাব রাখা হচ্ছে।

ইতালীর হোটেলগুলোতে দম্পতিদের জন্য বিনামূল্যে ছুটি কাটানোর ব্যবস্থা
ইতালীর হোটেলগুলোতে দম্পতিদের জন্য বিনামূল্যে ছুটি কাটানোর ব্যবস্থা

এই হোটেলগুলোতে থাকার নয় মাস পর যদি তারা সন্তানের জন্ম নিবন্ধন সার্টিফিকেট দেখাতে পারেন,তাহলে তাদের জন্য বিনামূল্যে ঐ হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করা হবে নতুবা পূর্বের অবস্থানকালীন অর্থ ফেরত দেয়া হবে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোর মধ্যে ইতালী সবচেয়ে কম জন্মহারের দেশ এবং বিশ্বের মধ্যে অন্যতম প্রধান কম জন্মহারের দেশ ইতালী।

ইতালীতে সন্তানের ভরনপোষনের ব্যয় বেশি হওয়ার কারণে মূলত: দম্পতিরা একটার বেশি সন্তান নিতে চান না। এমনকি সন্তান নিতেও দেরি করে। ইউরোপের অন্যান্য দেশে সরকার থেকে আর্থিকভাবে মোটামুটি সাহায্য করা হলেও ইতালীতে করা হয় তা নামমাত্র।

২০১৫ সালে প্রতি এক হাজার জন বাসিন্দার মধ্যে মাত্র আটজন শিশু জন্ম নিয়েছে। আর এ সংখ্যা ধরে রাখতে বিশেষভাবে অবদান রাখছে ইতালীতে বসবাসরত প্রবাসীরা। তবে কিছু স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এই প্রকল্প থেকে দূরত্ব বজায় রাখছেন। তারা বলছেন, এই প্রকল্প তদন্ত করে দেখা হবে যে এটা আসলে আসিসি অঞ্চলের ইমেজের জন্য কতটা প্রযোজ্য।

যে গাছ তাড়াবে মশা

সন্ধ্যা নামতেই মশার যন্ত্রণায় অস্থির। কামড় তো আছেই সাথে কানের কাছে ‘ভনভন’ গান। চরম বিরক্তিকর ঘটনা। তার ওপর এখন মশার কারণে হচ্ছে ভয়ঙ্কর সব রোগ। ম্যালেরিয়ার তো ছিলই। এখন যোগ হয়েছে জিকা।তাই মশা তাড়তে ব্যতিব্যস্ত সবাই। এটা-সেটা কিনে অস্থির।মশা তাড়াতে কত কিছুই তো ব্যবহার করলেন। কত কিছুই তো কিনলেন। কিন্তু কোনো কিছুতেই কাজ হচ্ছে না। তাহলে উপায়?

উপায় একটা বের করেছেন বিজ্ঞানীরা। সেটা কোনো ওষুধ নয়, আজব এক গাছ। সেটি নাকি মশা তাড়াবে।

গাছটির নাম সাইট্রনেলা।
গাছটির নাম সাইট্রনেলা।

মার্কিন এক বিজ্ঞানী এ আজব গাছ আবিস্কার করেছেন গাছটির নাম সাইট্রনেলা।

খুব সহজেই গাছটি বাড়ির বারান্দায় অথবা ব্যালকনিতে লাগাতে পারেন। খুব বেশি পানি ও সারের দরকার পড়ে না। আর এই গাছ বেঁচেও থাকে অনেক বছর।

এই গাছ থেকে একধরণের সুগন্ধি বেরোয়, যা মশাদের একেবারে অপছন্দ। আর এই গন্ধ পেলেই মশারা এই গাছের ত্রিসীমানায় ঘেষতে চায় না। গাছটি খরা প্রতিরোধেও কাজে আসে। এই ধরনের মাত্র ৬-৭ টি গাছ, এক একর জায়গাকে মশা মুক্ত রাখতে পারে। সুতরাং মশার জ্বালায় যারা অতিষ্ঠ হয়ে আছেন তারা দুই-তিনটি সাইট্রনেলা গাছ বাড়ীর চারদিকে কিম্বা ফ্ল্যাটের ব্যালকনিতে লাগিয়ে দেখতে পারেন কাজ হয় কিনা।

কিছু অবাক করা মজার তথ্য !!!

কিছু অবাক করা মজার তথ্য

•পৃথিবীর একমাত্র প্রাণী গরু যেটি সিড়ি দিয়ে উঠতে পারে কিন্তু নামতে পারে না।

• তুলনামূলক পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী প্রাণী হল পিঁপড়া যে নিজের ওজনের ০৯ গুণ ওজন  বহন করতে পারে।

• পৃথিবীর একমাত্র প্রাণী ফড়িং যার কান থাকে হাঁটুতে।

আপনি জানেন কী ?

► ঢাকার ইংরেজী বানান ‘DACCA’ থেকে ‘DHAKA’ করা হয়১৯৮২ সালে।
► ১৮১২ সালে ৮.৬ মাত্রার একটি ভূমিকম্পের প্রভাবে মিসিসিপি নদী কয়েক ঘন্টার জন্য উল্টো দিকে প্রবাহিত হয়।
► কবে সর্বপ্রথম বাংলাদেশে লিভার প্রতিস্থাপন অপারেশন করা হয়? জুন ২০১০।
► বাংলাদেশে প্রচলিত প্রথম কম্পিউটারের নাম কি? IBM 1620
► বাংলাদেশে প্রথম কবে এবং কোথায় কম্পিউটার স্থাপিত হয়? ১৯৬৪ সালে ঢাকায় পরমাণু শক্তিকেন্দ্রে।
► বাংলাদেশ সাব মেরিন ক্যাবল যুক্ত হওয়ার চুক্তিস্বাক্ষর করে কবে? ২৭ মার্চ ২০০৪।
► বিজিবির সর্বপ্রথম নাম কি ছিল? রামগড় লোকাল ব্যাটালিয়ন।
► স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের প্রথম স্পিকার কে ছিলেন্? মোহাম্মদ উল্লাহ্।
► ২১শে ফেব্রুয়ারী ১৯৫২, ২৫শে মার্চ ১৯৭১ এবং ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১ প্রত্যেকটি দিন ছিল বৃহস্পতিবার্।
► প্রতি বছর ৪/৪, ৬/৬, ৮/৮, ১০/১০,১২/১২ তারিখগুলো সপ্তাহের একই দিনে হয়। ২০১২ সালে এ দিনগুলো হলো বুধবার।
► ভিটামিন ‘এ’ এর অপর নাম কি? রেটিনল।
► জোয়ার ভাটার তেজকটাল হয় – অমাবস্যায়্।
► জোয়ারের কত সময় পর ভাটারসৃষ্টি হয় – ৬ ঘন্টা ১৩ মিনিট্।

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

জানা-অজানা অদ্ভুদ মজার কিছু তথ্য !!!

::: জানা-অজানা অদ্ভুদ মজার কিছু তথ্য :::

• আমেরিকার কলাম্বিয়া প্রদেশে মেয়ের বাসর‬রাতে তার মার উপস্থিতি বাধ্যতামূলক!!

• লেবাননের আইন অনুসারে কোনপুরুষ লোক গৃহপালিত পশুর সাথেসহবাস করতে পারে!! কিন্তু পশুটা অবশ্যই মাদী হতে হবে!! মদ্দা পশুর সাথে সহবাস করারশাস্তি হলো মৃত্যুদন্ড!!

• ইন্দোনেশিয়ায় হস্তমৈথুনের শাস্তি হলো মুন্ডচ্ছেদ!!

• গুয়ামের আইন অনুসারে কোন কুমারী মেয়ে বিয়ে করতে পারেনা!! তাই কিছু লোক আছে যারা পয়সার বিনিময়ে কুমারিত্বেরঅভিশাপ মুক্ত করার কাজ করে!! মেয়ের বাবা-মা সাধারনতঃ এই কাজেরজন্য অনেক টাকা থরচ করেন!! মজার বিষয় হলো এরা কাজ শেষেসার্টিফিকেট দেয়!!

• হংকং এর আইন অনুসারে কোন মেয়ের স্বামী পরকীয়া করলে তাকে সে খুন করতে পারে!! তবে খুনটা করতে হবে খালি হাতে!! আর যে মেয়ের সাথে পরকীয়া প্রেম করছিল, তাকে খুন করারজন্য যেকোন অস্ত্র ব্যবহার করা যাবে!! (সংগৃহীত)

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।

সত্য‬ ঘটনা অবলম্বনে শিক্ষনীয় মজার কিছু তথ্য !

 ‪সত্য ঘটনা অবলম্বনে শিক্ষনীয় মজার কিছু তথ্য
.

☞ চার ঘন্টার মাঝে একশ কাপ কফি পান করলে মৃত্যু অবধারিত।
☞ পোকাখেকো বাজ পাখির দৃষ্টি এত প্রখর যে আধমাইল দূর থেকেও একটা ফড়িংকে শনাক্ত করতে পারে।
☞ মিশরের বৃহৎ পিরামিডের ভিত্তি এবং ভূমির আয়তন ১০টি ফুটবলের মাঠের সমান।
☞ বিশ্বের সবচাইতে ধনী তিন ব্যাক্তির মোট সম্পদের পরিমান, ৪৮ টি দরিদ্র দেশের মোট সম্পদের চেয়ে বেশি।
☞ একবার চোখের পলক ফেলতে সময় লাগে 0.4 সেকেন্ড
☞ শরীরের সব থেকে শক্ত অঙ্গ (পেশী) হচ্ছে জিহ্বা
☞ শামুক টানা তিন বছর ঘুমাতে পারে
☞ ঘরে নীল রঙের বাতি জ্বালালে মশা বের হয়ে যায়
☞ আপনি যত বেশি ঠাণ্ডা ঘরে ঘুমাবেন, আপনার দুঃস্বপ্ন দেখার সম্ভবনা তত বেশি !!
☞ সারাদিনে একজন পুরুষের চেয়ে একজন মহিলা বেশি সংখ্যক বার চোখের পাতা ফেলেন !!
☞ আপনি যদি হঠাৎ করে সিগারেট খাওয়া ছেড়ে দেন, তবে সম্ভবনা আছে যে, আপনার রাতের ঘুম একঘণ্টা করে কমে যাবে !!
☞ আপনি যখন হাসেন তখন আপনার দেহে ক্লান্তি সৃষ্টিকারী হরমোনগুলো কাজ করতে পারে না !! এজন্য তখন আপনাকে আরো বেশি সজীব এবং সতেজ দেখায় !!
☞ একটা ৬ বছরের বাচ্চা দিনে গড়ে প্রায় ৩০০ বারের মতো হাসে !! আর একজন পরিপূর্ণ/ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ দিনে হাসেন গড়ে ১৫-১০০ বার !!
☞ আপনার ব্রেইন দিনের চেয়ে রাতের বেলা কাজ করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে !!
☞ রাতের বেলা ব্রেইনের কাজ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় !

দেশ-বিদেশের সকল খবর,
ব্রেকিং নিউজ ও সমসাময়িক
ইসলামিক আলোচনা পেতে : রিপোর্ট 24 বিডি তে লাইক দিন ।