দুহাত কাটার পরেও হাতের অবশিষ্টাংশ দিয়ে ইসলামের পতাকা দরছিলেন যে সাহাবী

হযরত মুসআব ধনীর দুলাল ছিলেন। কিন্তু ইসলাম গ্রহন করার পর তাঁর উপর চরম নির্যাতন চালানো হয়। দীর্ঘদিন বন্দী করে রাখা হয়। একদিন বন্দী জীবনের শৃংখল ভেংগে আবিসিনায় চলে যান। সেখান থেকে ছিন্ন বিচ্ছিন্ন একটি পোশাক পরিধান করে মদীনায় আসেন। হযরত মুসআবের এই দুরবস্থা দেখে আল্লাহর রাসুল (সা) এর চোখ অশ্র“ সিক্ত হয়। কেননা মুসআব খুবই আরাম আয়েশের জীবন যাপন করতো। শুধুমাত্র ইসলাম গ্রহন করার কারণে তার এই দুরবস্থা।

মুসআব মদীনায় আসার পর ওহুদ যুদ্ধ সংগঠিত হয়। উক্ত যুদ্ধে মুসআবের হাতে ছিল ইসলামের পতাকা। যুদ্ধের ময়দানে শত্র“র প্রচন্ড আঘাতে মুসআবের ডান হাত কেটে যায়। এরপর তিনি বাম হাত দিয়ে ইসলামের পতাকা উড্ডীন রাখেন। একটু পরে বাম হাতও কাটা যায়। দুহাত কাটা যাওয়ার পর দুই হাতের অবশিষ্টাংশ দিয়ে ইসলামের পতাকা বুকে ধরে রাখলেন। যতক্ষণ প্রাণ ছিলো ইসলামের পতাকা মাটিতে পড়তে দেন নাই। অবশেষে শত্রু “ পক্ষের তীরের আঘাতে তিনি শহীদ হন।

১৬০০ ইয়াজিদি শিশুকে মাথা কাটার প্রশিক্ষণ দিয়েছে আইএস

১৬০০ ইয়াজিদি শিশুকে মাথা কাটার প্রশিক্ষণ দিয়েছে আইএস

১৬০০ ইয়াজিদি শিশুকে মাথা কাটার প্রশিক্ষণ দিয়েছে ইসলামিক স্টেট। শুধু মাথা কাটাই নয়, ‘শত্রু’পক্ষের সঙ্গে কী ভাবে লড়তে হবে, কী ভাবে খুন করতে হয়, এমনকী কী করে আত্মহত্যা করতে হয় সে শিক্ষাও দেওয়া হয়েছে।

১৬০০ ইয়াজিদি শিশুকে মাথা কাটার প্রশিক্ষণ দিয়েছে আইএস
১৬০০ ইয়াজিদি শিশুকে মাথা কাটার প্রশিক্ষণ দিয়েছে আইএস

কুর্দিসের সরকারি সূত্রে এমনটাই দাবি করা হয়েছে। কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকারের ইয়াজিদি অ্যাফেয়ার্স বিষয়ক অফিসের প্রধান খৈরি বোজানি বলেন, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এই শিশুদের দিয়ে যে কোন সময় ইউরোপের দেশগুলিতে হামলা চালাতে পারে আইসিস। এমনকী আমেরিকা ও আরবের দেশগুলোর জন্যও এরা বিপজ্জনক।

সম্প্রতি প্রায় সাড়ে ৬ হাজার ইয়াজিদিকে মুক্তি দিলেও, সরকারি সূত্রে দাবি, ইয়াজিদিদের একটা বড় অংশকেই মসুলে জোর করে আটকে রেখেছে আইএস।

র‍্যাংকিংয়ে উন্নতি হল অধিনায়ক মাশরাফির

সবে মাত্র টি-টোয়েন্টি ফরমেট থেকে অবসর নেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচটিতে উপহার হিসেবে পেয়েছিলেন জয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সে ম্যাচে ৪৫ রানের জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছিল মাশরাফির দল। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে বিদায়ের পর পেলেন আরও একটি উপহার। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সর্বশেষ প্রকাশিত র‍্যাংকিংয়ে টি-টোয়েন্টি বোলারদের তালিকায় উন্নতি হয়েছে মাশরাফির।

রবিবার প্রকাশিত র‌্যাংকিংয়ে ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত এই পেসারের অবস্থান ৩৬তম। ৪১ নম্বর থেকে পাঁচ ধাপ এগিয়েছেন বাংলাদেশের সীমিত ওভারের এই সফল অধিনায়ক। বর্তমানে মাশরাফির অর্জন ৫৩৪ রেটিং পয়েন্ট। তবে এটাই তার সর্বোচ্চ পয়েন্ট নয়। তার ক্যারিয়ার সেরা রেটিং ছিলো ৫৪৫ পয়েন্ট। ২০১৬ সালে সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ডে ওমানের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ রেটিং অর্জন করেছিলেন ম্যাশ।

র‍্যাংকিংয়ে উন্নতি হল অধিনায়ক মাশরাফির
র‍্যাংকিংয়ে উন্নতি হল অধিনায়ক মাশরাফির

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজে মাশরাফির মোট উইকেট সংখ্যা তিন। প্রথম ম্যাচে চার ওভারে ৩২ রান দিয়ে পেয়েছেন দুটি উইকেট। আর আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের শেষ টি-টোয়েন্টিতে চার ওভার বোলিং করে ৩০ রান দিয়ে একটি উইকেট নেন।

এছাড়াও বাংলাদেশের আরও দুই বোলার আছেন সেরা ১০ বোলারের তালিকায়। টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান আছেন ছয় নম্বরে ও স্পিনার সাকিব আল হাসান আছেন নয় নম্বরে।