রাসুল (সাঃ) এর সাথে একসঙ্গে জান্নাতে যেতে চান,তাহলে আমল করুন এই দোয়াটি !!

হজরত মুনজির [রা.] বলেন: আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: যে ব্যক্তি প্রতিদিন সকালে এ দোয়াটি পড়বে আমি তার দায়িত্ব নিলাম, কেয়ামতের দিন আমি তাকে তার হাত ধরে জান্নাতে নিয়ে যাব। [মুজামে কাবির-৮৩৮ মুজামুস সাহাবাহ-১৬৯৬]

বাংলা উচ্চারণ
রদিতু বিল্লাহি রববাও ওয়া বিল ইসলামি দিনাও ওয়া বিমুহাম্মাদিন [সা.] নাবিইয়াও।

বাংলা অর্থ
আমি আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট আমার প্রতিপালক হিসেবে এবং ইসলামের প্রতি সন্তুষ্ট আমার দীন হিসেবে এবং মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি সন্তুষ্ট আমার নবী হিসেবে।

মূল- হজরত মাওলানা ইউনুস বিন উমর পালনপূরী
অনুবাদ- মাওলানা মিরাজ রহমান

বাংলাদেশ ক্রিকেটের মধ্যমনি তিনি। বিশ্বের যারা ক্রিকেট বোঝেন তাদের কাছে পরিচিত নাম জাতীয় ওয়ানডে দলের এই অধিনায়ক। ইতোমধ্যে শেষ করেছেন ক্যারিয়ারের ১৬ টি বছর।যার প্রতিটি ক্ষণ ছিল স্মরণীয়।

এই ১৬ বছর ক্যারিয়ারে মাশরাফির ওয়ানডেতে সেরা বোলিং ফিগার ৬/২৬। অন্যদিকে টেস্টে ৪/৬০। দীর্ঘ এই ক্যারিয়ার জুড়ে কাঁচি-ছুরির নিচে গেছেন অন্তত সতবার। তবুও তিনি লড়ছেন আপন মনে। এ যেন জীবন্ত কিংবদন্তী, জীবন্ত যোদ্ধা।

এই মাশরাফিকে যারা চেনেন তাদের নিশ্চত মনে আছে ২০১১ বিশ্বকাপের কথা। বাংলাদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত ২০১১ বিশ্বকাপে মাশরাফিকে দলের বাইরে রেখেই স্কোয়াড় গড়েছিল নির্বাচক ও কোচ। টিম ম্যানেজম্যান্টের এমন সিদ্ধান্তে কেঁদেছিলেন জাতীয় দলের এই অধিনায়ক।

এ বিষয়ে দেশের প্রথম সারির একটি বেসরকারি টিভিকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে মাশরাফি বলেছেন, ‘এটা আসলে ঠিক হয়নি। আমি সেদিন কেঁদেছিলাম। ভাবতেও পারিনি আমার সাথে এমনটা করবে। কারণ আমি সারাক্ষণই দলের সঙ্গে ছিলাম। প্যাকটিসেও এসেছিলাম নিয়মিত। বুঝতেই পারিনি কোচ ও টিম ম্যানেজম্যান্ট আমার সাথে এমনটা করবে।’

অদ্ভুত ব্যাপার হলো, বোর্ড কিংবা কোচের কাছ থেকে আগে থেকে বিষয়টা শুনেননি মাশরাফি। তাই তো তার কষ্টের মাত্রাটা কয়েন গুণ বেশিই। আসরটিতে পুরো সময় জুড়ে দলের বাইরে ছিলেন তিনি। কিন্তু তার আশা ছিল কোন না কোন ম্যাচে ফিরবেন। কিন্ত শেষ পর্যন্ত তা আর হয়নি।

সেসময় মাশরাফির বিরুদ্ধে কথা উঠেছিল তিনি ইনজুরিতে ভুগছেন, আনফিট। কিন্তু দল গঠনের আগেও মোহামেডানের হয়ে দুর্দান্ত খেলেছিলেন এবং ভালো বোলিং করেছিলেন। এ ব্যাপারে মাশরাফি বলেন, এই ঘটনা যাতে আর কোন প্লেয়ারের বেলায় না ঘটে। অন্তত তাকে খেলার আগে জানানো উচিত। শুধু আমি কেন, সে সময় এমন ঘটনা ঘটেছে অনেকের সঙ্গে।

জেনে নিনর পবিত্র কুরআনে আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর গুণবাচক নামগুলো?

পৃথিবীর সূচনালগ্ন থেকে অদ্যাবধি যে ব্যক্তিত্বের নাম সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয়েছে, যাকে কেন্দ্র করে রচিত হয়েছে অসংখ্য ইতিহাস, রচনা, প্রবন্ধ, কবিতা ও গান,তিনি হলেন¬ মানবতার মহান পরম বন্ধু মহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাঃ। স্বয়ং আল্লাহরাব্বুল আলামিন তাঁর নামকে সুউচ্চ মিনারের সর্বোচ্চ চূড়ায় স্থান দিয়েছেন। আল কুরআনে তাঁর বিভিন্ন গুণবাচক নাম উল্লেখ করে তাঁকে মর্যাদার আরো উচ্চশিখরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আমি তোমার জন্য তোমার খ্যাতির কথা বুলন্দ করেদিয়েছি।” (সূরা আলাম নাশরাহঃ ৪) এমনকি আল্লাহ তায়ালা তাঁর অসীম ক্ষমতা বলে কাফেরদেরমাধ্যমে তাঁর আলোচনাকে পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে দিয়েছেন।

নিম্নেআল কুরআনে আলোচিতবিভিন্ন গুণবাচক নাম আলোচনা করা হলোঃ

১. মুহাম্মদঃ আল কুরআনে এনামটি চার বার এসেছে। যথাঃ সূরা আলে ইমরানঃ ১৪৪, সূরা আহজাবঃ ৪০, সূরা মুহাম্মদঃ ২,সূরা আল ফাতাহঃ ২৯। মুহাম্মদ অর্থ প্রশংসিত।

২. আহমাদঃ আহমাদ নামটি আল কুরআনে শুধু একবার সূরা সফে এসেছে।আহমাদ শব্দের দু’টি অর্থ। এক. ‘অধিক প্রশংসিত’, আল্লাহর বান্দাদের মধ্যে যিনিসবচেয়ে বেশি প্রশংসার যোগ্য। দুই. আল্লাহর সর্বাধিক প্রশংসাকারী। ‘আর স্মরণ করোঈসা ইবনে মারিয়ামের সেই কথা যা তিনি বলেছিলেনঃ ‘হে বনী ইসরাঈল! আমি তোমাদের কাছেআল্লাহর প্রেরিত রাসূল। আমি সেই তাওরাতের সত্যতা প্রতিপাদনকারী যা আমার আগে এসেছেএবং একজন রাসূলের সুসংবাদদাতা যিনি আমার পরে আসবেন, যার নাম ‘আহমাদ’। (সূরা সফ)

৩. নবীঃ ‘নাবা’ শব্দ থেকে এসেছে, যার অর্থ সংবাদ। রাসূল সাঃ আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে তাঁর বাণী পৃথিবীর মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। কোন পথেমানুষের মুক্তি এবং কোন পথে শয়তান ফাঁদ পেতে বসে আছে তার সংবাদবাহক রাসূল সাঃঅসংখ্য পথ ও মতের মধ্যে তিনি সঠ িক পথের সংবাদবাহক।

৪. রাসূলঃ দূত বা বার্তাবাহক। (হে নবী) ‘আমি তোমাকে বিশ্ববাসীর জন্য রাসূল হিসেবে প্রেরণ করেছি।’ (সূরা নিসাঃ ৭৯) মানুষের শিক্ষা ও হিদায়াতের জন্য তিনি আল্লাহর পক্ষ থেকে একজন বার্তাবাহক ছাড়া আর কিছু নহেন। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘(হে নবী) তুমি বলে দাও, আমি তোমাদেরই মতো মানুষ। আমি তো মানুষরাসূল ছাড়া কিছুই নই।’

৫. মুয্‌যাম্মিলঃ চাঁদর আবৃতব্যক্তি। ‘হে চাদর আবৃতকারী, রাত্রির কিয়দংশ জাগো, অর্ধেক রাত্রি অথবা তার চেয়েকিছু কম অথবা কিছু বেশি এবং তারতিলের সাথে কুরআন তেলাওয়াত করো। নিশ্চয় আমি তোমারওপর গুরুভার দায়িত্ব অর্পণ করেছি।’ (সূরা মুয্‌যাম্মিলঃ ১)

৬. মুদ্দাসসিরঃ বস্ত্র মুড়িদিয়ে শয়নকারী। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘হে বস্ত্র মুড়ি দিয়ে শয়নকারী, ওঠো এবং সাবধানকরে দাও, তোমার রবের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা করো, তোমার পোশাক পবিত্র রাখো,অপবিত্রতা থেকে দূরে থাক।’ (সূরা মুদ্দাস্‌সিরঃ ১-৫)

৭. শাহিদঃ সাক্ষ্যদানকারী। ‘হে নবী নিশ্চয়ই আমি আপনাকে পাঠিয়েছি সাক্ষ্যদাতা।’ (সূরা আহজাবঃ৪৫) অর্থাৎ আল্লাহর শিক্ষা ও হিদায়াতের সাক্ষ্যদানকারী, ইসলামের রূপরেখা বা চিত্রেরজ্বলন্ত নমুনা।

৮. বাশির ও মুবাশ্বিরঃ সুসংবাদদানকারী। তিনি সৎকর্মশীলদের কল্যাণ ও সৌভাগ্যের সুসংবাদদানকারী। ‘হে নবীনিশ্চয়ই আমি আপনাকে পাঠিয়েছি সুসংবাদদানকারী হিসেবে।’ (সূরা আহজাবঃ ৪৫) প্রকৃতইরাসূলুল্লাহ সাঃ-এর পয়গাম ছিল মানবজাতির জন্য অনেক বড় সুসংবাদ।

৯. মুনজির ও নাজিরঃ ভীতি প্রদর্শনকারী। অর্থাৎ এখনো যারা সত্যসম্পর্কে অজ্ঞ, রাসূল সাঃ ছিলেন তাদের সতর্ক ও সাবধানকারী। ‘হে নবী আমি আপনাকেপাঠিয়েছি ভয় প্রদর্শনকারী হিসেবে।’ (সূরা আহজাবঃ ৪৫)

১০. আমিনঃ বিশ্বস্ত। নবী আকরাম সাঃ তাঁর উন্নত চরিত্র ওমাধুর্যমণ্ডিত স্বভাবের কারণে স্বতন্ত্র এবং বিশিষ্ট ছিলেন। তিনি ছিলেন সবার চেয়েঅধিক বক্তিত্ব সম্পন্ন, সবার জন্য নিরাপদ ও বিশ্বস্ত আশ্রয়স্থল। আরো ছিলেন একজন সম্মানিত প্রতিবেশী, বন্ধুভাবাপন্ন মানুষ, সর্বাধিক দূরদর্শিতাসম্পন্ন জ্ঞানী, সত্যবাদী, কোমল প্রাণ ও পবিত্র পরিচ্ছন্ন মনের অধিকারী। অঙ্গীকার পালনে, প্রতিশ্রুতি রক্ষায় ও আমানত আদান প্রদানে তিনি ছিলেন অতুলনীয়। তাই স্বজাতির লোকেরা তাঁকে আল আমিন নামে ভূষিত করেন।

১১. হাদিঃ পথ প্রদর্শকঃ রাসূল সাঃ ছিলেন সিরাতুল মুস্তাকিমেরপ্রদর্শক। মানবজাতি যখন আদিম জাহেলিয়াতের কোলে ঘুম গিয়েছিল, সভ্যতা যখন প্রগাঢ়অন্ধকারে ডুবেছিল, চারদিকে বিরাজ করছিল উত্তেজনা, মানুষ মানুষে সঙ্ঘাত, যুদ্ধ ওলুটপাটের তাণ্ডবে মেতে উঠেছিল, অসংখ্য পথ ও মতের যাঁতাকলে মানুষের নাভিশ্বাস শুরুহয়েছিল, তখন লাখো চাঁদের আলো নিয়ে হেরা থেকে নেমে এলেন সিরাতুল মুস্তাকিমেরপ্রদর্শক মুহাম্মদ সাঃ। লক্ষ্যচ্যুত জাতিকে তিনি পথের দিশা দিলেন।

১২. নূরঃ আলো। রাসূল সাঃ অন্ধকার পৃথিবীর এক আলোকিত মহামানব।তাঁর আগমনের পর সব অন্ধকার দূরীভূত হয়ে যায়। আল্লাহ তায়ালা তাঁর আগমনে বলেছেন,‘সত্য এসেছে, মিথ্যা অপসৃত হয়েছে, মিথ্যা তো পরাজয় ধ্বংস হবেই।’ তাঁর শিক্ষা ওচরিত্র যেমন ছিল আলোকিত ও ঝলমল, তেমনি তাঁর বাস্তব অবয়বও ছিল সূর্য ঝিকমিক। তাঁরচলনে-বলনে, আচার আচরণে লক্ষ চাঁদের আলো এসে আছড়ে পড়ত। তাঁর দৈহিক সৌন্দর্যসম্পর্কে আবু কারসনার মা ও খালা বলেন, ‘আমরা এমন সুদর্শন মানুষ আর দেখিনি। আমরা ওরমুখ থেকে আলো বিকীর্ণ হতে দেখেছি।’ হজরত আবু হোরায়রা বলেন, ‘রাসূল সাঃ-এর চেয়েসুদর্শন কাউকে দেখিনি। মনে হতো যেন সূর্য ঝিকমিক করছে।’

১৩. সিরাজুম মুনিরাঃ মূর্তিমান আলোক ও প্রদীপ। অর্থাৎ তাঁরব্যক্তিত্ব ও জীবন আমাদের পথের অন্ধকার দূরীভূতকারী উজ্জ্বল আলোকবর্তিকা। ‘হে নবীআমি তোমাকে সাক্ষ্যদানকারী, সুসংবাদদানকারী ও সতর্ককারী, আল্লাহর নির্দেশে তাঁরদিকে আহ্বানকারী এবং উজ্জ্বল প্রদীপ বানিয়ে পাঠ িয়েছি। (সূরা আহজাবঃ ৪৫-৪৬)

১৪. দায়ী ইলাল্লাহঃ আল্লাহর দিকে আহ্বানকারী। অর্থাৎ পথভ্রষ্ঠলোকদেরকে আল্লাহ পথে আহবানকারী। পথহারা মানুষকে তিনি সঠিক ঠ িকানায় পৌঁছে দিয়েছেন।‘হে নবী আমি তোমাকে সাক্ষ্যদানকারী, সুসংবাদদানকারী এবং সতর্ককারী, আল্লাহরনির্দেশে তাঁর দিকে আহ্বানকারী ও উজ্জ্বল প্রদীপ বানিয়ে পাঠিয়েছি। (সূরা আহজাবঃ৪৫-৪৬)

১৫. রহমতঃ অনুগ্রহ। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘(হে নবী) আমি যেতোমাকে পাঠিয়েছি, এটা আসলে দুনিয়াবাসীর জন্য আমার রহমত।’ (সূরা আম্বিয়াঃ ১০৭) হজরতমুহাম্মদ সাঃ আগমন আসলে সমগ্র মানবজাতির জন্য আল্লাহর বিশেষ রহমত বা অনুগ্রহ। কারণতিনি এসে অন্ধকারে নিমজ্জিত বিশ্বকে জাগিয়ে তুলেছেন। বিশ্বমানবতা যখন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছিল, এই বুঝি আদ-সামুদ জাতির ভাগ্যবরণ করতে যাচ্ছে, অকস্মাৎআল্লাহর গজব এসে আছড়ে পড়বে হয়তো এখনি। কিন্তু রাসূল সাঃ-এর কারণে সমগ্র মানব জাতি অবশ্যম্ভাবী এক ধ্বংস থেকে মুক্তি পেল। ব্যক্তি হিসেবে তিনি ছিলেন করুণার আধার। তাঁর চাচা আবু তালিব কোনো এক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে প্রায়ই বলতেন, ‘তিনি সুদর্শন,তাঁর চেহারা থেকে বৃষ্টির করুণা প্রত্যাশা করা হয়। তিনি এতিমদের আশ্রয় তিনিবিধবাদের রক্ষাকারী।

জেনে নিন, হযরত মোহাম্মদ সাঃ এর একজন কালো সাহাবির হৃদয় নিংড়ানো প্রেমের সত্য কাহিনী

আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ সাঃ এর একজন কালো সাহাবি ছিলো , সকল সাহাবির মধ্যে সেই বেশি কালো , কিন্তু নবিজীর ভালোবাসায় সর্বদা জীবন দিতে প্রস্তুত , সেও শাহসি সাহাবির মধ্যে একজন , প্রিয় নবি অনেক ভালো বাসতেন তাকে ।_____ একদিন নবিজী বললো , কালো সাহাবিকে তুমি সারাক্ষণ আমার সাথেই থাক , তাই তোমার কাছে আমি কিছু জানতে চাই, নবীজীর কাছে মাথা নিছু করে বলল , হুজুর আমার জান হাজির আপনি শুধু বলুন কি জানতে চান , নবিজী বলল তোমার বিয়ের সময় হয়েছে , তুমি কি তার জন্য প্রস্তুত । কালো সাহাবি মাথা নেরে বলল , হুজুর আমি যে এত কালো আমার কাছে কে মেয়ে বিয়ে দেবে , নবিজী বলল তুমি বিয়ে করবে কিনা বল তোমার জন্য আমি মেয়ে দেখবো , কথাটি শুনে কালো সাহাবি খুশিতে কেঁদে পেলল , হুজুর আপনি আমার জন্য মেয়ে দেখবেন , এর চেয়ে আমার কাছে বড় আর কি হতে পারে , আমি রাজি ।
নবিজী একটি পত্র লিখে কালো সাহাবির হাতে দিয়ে বললেন এই পত্রটি মদিনার বড় বাড়িতে গিয়ে , মালিকের হাতে দিয়ে উত্তর জেনে তার পরে আসবে ,
কালো সাহাবি জানে না এর ভিতরে কি লেখা আছে , নবিজীর কথা অনুযায়ী পত্র খানি নিয়ে মদিনার বড় বাড়ির মালিকের হাতে দিল । নবিজীর কথা শুনে তারাতারি পত্রটি খোলে পেলল, এর মধ্যে লেখা আছে __________
আসছালামুয়ালাইকুম আমি মোহাম্মদ সাঃ আপনার কাছে আমার কালো সাহাবির জন্য আপনার মেয়ের বিয়ের প্রস্তাব দিলাম । আশা করি আমার প্রস্তাব আপনি গ্রহণ করবেন এবং আমার কালো সাহাবির সাথে আপনার সুন্দরী মেয়ের বিবাহ দিবেন , ___________ ইতি হযরত মোহাম্মদ সাঃ বড় বাড়ির মালিক নবিজীর কথা শুনে কেঁদে ফেললো , আমার এক মাত্র মেয়ে , মদিনায় যাকে হুরে মদিনা বলে চিনে______ ( কিতাবে আছে মেয়েটি এত সুন্দর যার কারনে সবাই তাকে হুরে মদিনা বলে ডাকতো)_______ এখন আমি কি করি নবিজী বলেছে আনন্দের কথা কিন্তু ছেলেটি যে অনেক কালো , বিভিন্ন চিন্তায় মালিক চিন্তিত , কালো সাহাবি বলল নবিজী কি লিখেছেন , আমাকে বলেছেন উত্তর নিয়ে যেতে , মালিক বলল নবিজী বলেছেন তোমার সাথে আমার মেয়ে হুরকে বিয়ে দেওয়ার জন্য বাবা তুমি এখন যাও, নবিজীকে বলিয় আমি আমার মেয়ের সাথে পরামর্শ করে খবর পাঠিয়ে দেব , নবিজীর কালো সাহাবি মন খারাপ করে ফিরে যাচ্ছে । এমন সময় ঐ মেয়েটি দৌড়ে এসে বলল বাবা দেখলাম একটি লোক এলে হাসিমুখে

কিন্তু যাওয়ার সময় মন খারাপ করে যাচ্ছে কারন কি???? বাবা মেয়ের কাছে সব খুলে বললো , কথাটা শুনে মেয়েটি খুশিতে আত্মা হারা হয়ে বলল বাবা কি বলেছেন , নবিজী পত্র লিখেছেন আমার বিয়ার প্রস্তাব এর জন্য , আর আপনি ফিরিয়ে দিলেন বাবা ঐ সাহাবি নবিজীর কাছে পৌছার আগেই তাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসুন , না হয় যে আল্লাহর কাছে আমরা অপরাধী হয়ে যাবো । বাবা নবিজী পত্র লিখেছেন , এতে মনে হয় মদিনার সব চেয়ে মূল্যবান ও সূ ভাগ্যবান মেয়ে আমি , মেয়ের মুখে কথাটি শুনে বাবা আলহাদুলিল্লা বলে ঐ সাহাবি কে ফিরিয়ে নিয়ে এল, বলল তুমি যে আমার মেয়েকে বিয়ে করবে , দেন মহর হিসেবে কি দেবে ??? কালো সাহাবি বলল আমার কাছে নবিজীর ভালোবাসা ছাড়া আর কিছুই নেই , ঐ মেয়েটি বলল বাবা আপনারতো অনেক টাকা আজ নবিজীর ভালোবাসায় কিছু টাকা দেনমহরের জন্য ওকে দিয়ে দিন , মালিক আরো বলল বিয়ে যে করবে , কিছু কেনা কাটা করেছ , আমার মেয়েকে সাজানোর জন্য , কালো সাহাবির উত্তর আমার কাছে কোন টাকা নেই , ঐ মেয়েটি বলল বাবা , নবিজীর ভালোবাসার খাতিরে বিয়ের কেনা কাটার জন্য ও কিছু টাকা দিয়ে দিন ।
অবশেষে মদিনার বড় মালিক নবিজীর ভালোবাসার খাতিরে , কালো সাহাবির হাতে কিছু টাকা দিয়ে বলল যাও বিয়ের বাজার করে নিয়ে আসো , আজকের ভিতরে আমি নবিজীর কথায় আমার সুন্দরী মেয়ের সাথে তোমার বিয়ে দেব । নবিজীর কালো সাহাবি মনের আনন্দে বিয়ের বাজার করতে রওনা হলো , বাজারে গিয়ে কিছু কেনা কাটাও করে , হঠাৎ দেখে মানুষের দৌড়া দৌড়ি , কালো সাহাবি বলল কি হলো সবাই এমন করে দৌড়াচ্ছে কেন ??? দোকানের মালিক বলল তুমি কি কিনবে পরে এসো , আমাদের মদিনার সম্পদ , মুসলিম বিশ্বের রহমত , হযরত মোহাম্মদ সাঃ কে শত্রুরা আক্রমণ করেছে , এই বলে দোকান বন্ধ করে ছলে গেল । কালো সাহাবি অন্য দোকানে গিয়ে , বিয়ের বাজারের টাকা দিয়ে একটি তরবারি কিনলো, হঠাৎ আবার মনে হলো মদিনার সুন্দরী মেয়ে তার জন্য অপেক্ষা করছে , নিজের মনকে বুঝালো যেই নবি না হলে আমি হতাম না , দুনিয়া ও হতো না সেই নবির চেয়ে সুন্দরী মেয়ে আমার কাছে বড় নয়,

এই বলে নবিজীর কালো সাহাবি দৌড়ে যুদ্ধের ময়দানে চলে গেল । _______ কিতাবে আছে ঐ যুদ্ধে নবিজীর ৭০ জন সাহাবি শহীদ হয়েছে , তার মধ্যে কালো সাহাবি একজন । নবিজী অশ্রুসিক্ত হয়ে বলল , আমার আদরের সাহাবিদের কে রক্ত মাখা অবস্হায় দাফন করে দাও , কিয়ামতের ময়দানে আমি আল্লাহর কাছে তাদের রক্ত মাখা শরীর দেখিয়ে , কোটি কোটি গুনাগার উম্মেতের নাবাজাতের দাবি করবো । হঠাৎ নবিজীর চোখ পরে কালো সাহাবির দিকে , জিহবা কামুর দিয়ে রক্ত মাখা হয়ে পরে আছে , নবিজীর চিৎকার দিয়ে বলল , এই আমার কালো সাহাবির লাশ , তার আজকে বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো , কয়েকজন সাহাবি বলল হুজুর আপনার কালো সাহাবি বিয়ের বাজার করতে গিয়ে , যখন শুনতে পেলো , শত্রুরা আপনাকে আক্রমণ করেছে , তখন সে যুদ্ধের বাজার করেছে । নবিজী কাঁন্না অবস্হায় কালো সাহাবির কবরের ভিতরে তাকালো , কিছুক্ষণ পর হাসিমুখে বলল দাও তোমরা , আমার কালো সাহাবির দাফন করে দাও , সাহাবিরা বলল হুজুর বেয়াদবি মাপ করবেন , আপনি কাঁন্না অবস্হা কালো সাহাবির দিকে তাকালেন , আবার হাসিমুখে দাফন করতে বললেন , কারনটি বলবেন হুজুর । তাহলে শুন আমার কালো সাহাবির বিয়ের বাজার দিয়ে যুদ্ধের বাজার করেছে , আমার ভালোবাসায় ইসলাম এর পথে শহীদ হয়েছে , আমি তাকিয়ে দেখি ঐ হুরে মদিনা বেহেস্তি হুর হয়ে তার সেবা করছে ।

জেনে নিন, মৃত্যুর আগ মুহূর্তে মা ফাতিমাকে ডেকে চুপে চুপে যা বলেছিলেন রাসূল (সাঃ)

প্রত্যেক ব্যক্তিই মৃত্যুর আগে তার আপনজনকে কিছু না কিছু বলে যান। কিংবা অসিয়ত করে যান। তেমনি আল্লাহর রাসূলও (সাঃ) মৃত্যুর আগ মুহূর্তে তাঁর মেয়ে ফাতিমা (রাঃ) ডেকে চুপে চুপে কিছু কথা বলেন যান।

সে কথাগুলো কি ছিল? হাদীসে এসেছে- عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا، قَالَتْ: دَعَا النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَاطِمَةَ عَلَيْهَا السَّلاَمُ فِي شَكْوَاهُ الَّذِي قُبِضَ فِيهِ، فَسَارَّهَا بِشَيْءٍ فَبَكَتْ، ثُمَّ دَعَاهَا فَسَارَّهَا بِشَيْءٍ فَضَحِكَتْ، فَسَأَلْنَا عَنْ ذَلِكَ فَقَالَتْ: «سَارَّنِي النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّهُ يُقْبَضُ فِي وَجَعِهِ الَّذِي تُوُفِّيَ فِيهِ فَبَكَيْتُ، ثُمَّ سَارَّنِي فَأَخْبَرَنِي أَنِّي أَوَّلُ أَهْلِهِ يَتْبَعُهُ فَضَحِكْتُ» হযরত আয়শা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাঃ মৃত্যু-রোগকালে হযরত ফাতিমা (রাঃ) কে ডেকে আনলেন এবং চুপে চুপে কিছু বললেন, তখন ফাতিমা (রাঃ) কেঁদে ফেললেন; এরপর রাসূল (সাঃ) পুনারায় তাঁকে ডেকে চুপে চুপে কিছু বললেন, তখন তিনি হাসলেন।

পরে আমরা এ সম্পর্কে তাঁকে জিজ্ঞাসা করলাম, তিনি বললেন, রাসূল (সাঃ) যে রোগে আক্রান্ত আছেন এ রোগেই তিনি ইন্তেকাল করবেন। এ কথাটিই তিনি আমাকে গোপনে বলেছেন।তখন আমি কাঁদলাম।আবার তিনি আমাকে চুপে চুপে বললেন, তাঁর পরিবার-পরিজনের মাঝে সর্বপ্রথম আমিই তাঁর সাথে মিলিত হব, তখন আমি হাসলাম। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৪৪৩৩, ৪১৭০}

জেনে নিন, হযরত মোহাম্মাদ (সাঃ) এর সাথে জান্নাতে যাওয়ার আমল..?(শেয়ার করে অন্যদের দেখার সুযোগ করে দিন)

হজরত মুনজির [রা.] বলেন: আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: যে ব্যক্তি প্রতিদিন সকালে এ দোয়াটি পড়বে আমি তার দায়িত্ব নিলাম, কেয়ামতের দিন আমি তাকে তার হাত ধরে জান্নাতে নিয়ে যাব।

[মুজামে কাবির-৮৩৮ মুজামুস সাহাবাহ-১৬৯৬]

বাংলা উচ্চারণ
রদিতু বিল্লাহি রববাও ওয়া বিল ইসলামি দিনাও ওয়া বিমুহাম্মাদিন [সা.] নাবিইয়াও।
বাংলা অর্থ
আমি আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট আমার প্রতিপালক হিসেবে এবং ইসলামের প্রতি সন্তুষ্ট আমার দীন হিসেবে এবং মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি সন্তুষ্ট আমার নবী হিসেবে।

জেনে নিন, জিবরাঈল (আঃ) নবী করীম (সাঃ)-এর কাছে বর্নীত একটি ঘটনা”

এক ব্যক্তি পাহাড়ের উচ্চ চূড়ায় পাঁচশ বছর ধরে আল্লাহ পাকের ইবাদতে মশগুল ছিল। ঐ পাহাড়ের চারদিক লবণাক্ত পানি দ্বারা বেষ্টিত ছিল। আল্লাহ তা’আলা তার জন্য পাহাড়ের অভ্যন্তরে সুপেয় পানির ঝর্ণা এবং একটি আনার গাছের সৃষ্টি করেন।
.
প্রতিদিন সেই ব্যক্তি আনার ফল খেত এবং পানি পান করত। আর পানি দিয়ে অযূ করত। সে ব্যক্তি আল্লাহ্তা’আলার কাছে এই দু’আ করল- “হে আল্লাহ্! আমার দেহ থেকে রূহ যেন সেজদারত অবস্থায় কবয করার ব্যবস্থা করা হয়। আল্লাহ্ তা’আলা তার এই দু’আ কবুল করেন।”
.
হযরত জিবরাঈল (আঃ)বলেন- “আমি আসমানে আসা যাওয়ার সময় তাকে সেজদারত দেখতাম। কিয়ামতের দিন আল্লাহ্তা’আলা তার সম্পর্কে বলবেনঃ আমার এই বান্দাকে আমার রহমতে জান্নাতে প্রবেশ করাও।”
.
ঐ ব্যক্তি বলবে না, বরং আমার আমলের বরকতে।

তখন নির্দেশ আসবে- “আমার নিয়ামতের বিপরীতে তার কৃত আমল পরিমাপ কর। পরিমাপ করে দেখা যাবে, পাঁচশ বছরের ইবাদাত খতম হয়ে গেছে একটি চোখের নিয়ামতের বিনিময়ে।”
.
তখন আল্লাহ্ পাক নির্দেশ দিবেনঃ “আমার বান্দাকে জাহান্নামে নিয়ে যাও। ফেরেশতারা তখন তাকে নিয়ে রওয়ানা হবে। কিছুদূর যাওয়ার পর ঐ ব্যক্তি আরয করবে “হে আল্লাহ্! আমাকে তোমার রহমতে জান্নাতে প্রবেশ করাও।” নির্দেশ আসবে তাকে ফিরত নিয়ে আস। আল্লাহ্ পাকের নিকট ফিরিয়ে আনার পর তাকে নিচের প্রশ্নগুলো করা হবে আর সে বলবেঃ-
.
– “তোমাকে কে সৃষ্টি করেছেন?”
– “আল্লাহ, আপনি।”
– “এই কাজটা তোমার আমল না আমার রহমতের বরকতে হয়েছে?”
– “আপনার রহমতে।”
– “তোমাকে পাঁচশ বছর ইবাদাত করার শক্তি ও তাওফীক কে দিয়েছে?”
– “হে আল্লাহ্!আপনি।”
.
– “সমুদ্রের মাঝে পাহাড়ের উপর তোমাকে কে পৌঁছিয়েছে?
লবণাক্ত পানির মাঝে সুপেয় পানির ব্যবস্থা কে করেছে?
আনার গাছ কে সৃষ্টি করেছে?
তোমার দরখাস্ত মুতাবেক সেজদার মাঝে কে তোমার রূহ কবয করার ব্যবস্থা করেছে?”
.
-হে পরওয়ারদিগার! আপনি।
তখন ইরশাদ হবেঃ “এই সব কিছু আমার রহমতে হয়েছে এবং আমার রহমতেই তোমাকে জান্নাতে দাখিল করছি।” -( রিয়াদুস সালেহীনঃ ২/৫৩,৫৪)
.
আল্লাহু আকবার! হে আল্লাহ! কোন আমলের বিনিময়ে নয়, আপনার দয়া ও রহমতে আমাদেরকে জান্নাতুল ফিরদাউস দান করুন। আমিন।।

জেনে নিন, মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর দাম্পত্য জীবনে খাদিজা(রাঃ)এঁর ভূমিকা

আল্লাহর পথ থেকে সরে-পড়া,পথ-হারা মানুষকে হেদায়েতের আলো দিতে আল্লাহ মুহাম্মদ(সাঃ)-কে নির্বাচন করেন। এমন কাজ খুবই কঠিন ও দুরূহ। কেবল উত্তম চরিত্রের সুমহান ব্যক্তিত্বই এই গুরুদায়িত্বের সম্পাদন করেন এবং তাদের সাথে সংযুক্ত হোন এমন কিছু বড়-মাপের মানুষ যারা নবীদের আদর্শ বুঝেন এবং সেই লক্ষ্য অর্জনে নিজেদের জান ও মাল নির্দ্বিধায়, অকুণ্ঠচিত্তে কোরবানি করেন। এখানে নবী-রাসূল ও তাঁদের সঙ্গীদের মধ্যে নবুয়তের লক্ষ্য ও কর্ম-পদ্ধতি বুঝা ও একাত্ম হয়ে কাজ করার যে কেমিস্ট্রি গড়ে ওঠে, আল্লাহ এরই মাধ্যমে সাফল্যের দ্বার খুলে দেন। মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর রেসালতের দায়িত্ব বুঝে সেই লক্ষ্য অর্জনে যারা তাঁর পাশে সংযুক্ত হয়েছিলেন তাঁদের সর্বপ্রথম ছিলেন এই উদারচিত্ত, প্রজ্ঞার গুণে গুণান্বিত, প্রভাব ও বিত্তে প্রতিষ্ঠিত, তাঁরই সহধর্মীনী, উভয় জগতের আলো, কাল-কিয়ামত পর্যন্ত মু’মীনদের প্রেম-ভালবাসা, আবেগ ও শ্রদ্ধায় সিক্ত এই মহীয়সী, হজরত খাদিজাতুল কুবরা(রাঃ), যার জান ও মাল নিবেদিত ছিল এই ইসলামের প্রচার ও প্রতিষ্ঠায়। প্রাথমিক পর্যায়ে ইসলাম যখন পা পা করে হাঁটতে শুরু করে তখন তাঁরই ধন-মালের উপর দিয়ে শুরু হয় সেই হাটা, সেই পথ চলা।

হেদায়েতের জন্য কোন ব্যক্তিকে নির্বাচন করা যেন সেই ব্যক্তিকে এক কঠিন রাস্তায় দাঁড় করিয়ে দেয়ার সমতুল্য। এখানে পরিত্যাজ্য হওয়া, আক্রমণের শিকার হওয়া, আহত-নিহত হওয়া, ঠাট্টা-বিদ্রূপের পাত্র হওয়া ইত্যাদির সবকিছু রয়েছে কিন্তু এর মধ্যে আবারও রয়েছে আধ্যাত্মিকতার আলোয় আলোকিত হওয়া, এর মধ্যে রয়েছে আত্মার অনাবিল শান্তি, তার রিজিক-সামগ্রী। এতে রয়েছে পরম নেয়ামত। এটা প্রাপ্তির পর এই লক্ষ্যে জীবনের মোকাবেলায় মৃত্যুও তুচ্ছ হতে পারে। আবার এরই মধ্যে নিহিত রয়েছে বিশ্বাসে প্রতিষ্ঠিত সম্প্রদায়ের বিপুল মান-সম্মান। এই দিক থেকে এই নির্বাচন হচ্ছে আশীর্বাদ ও রহমত।
আল্লাহ তাঁর ইচ্ছা মোতাবেক মুহাম্মদ(সাঃ)-কে সর্বশেষ নবী হিসাবে মক্কায় পাঠানোর পর তাঁর সাহায্যের জন্য কিছু মহতী-প্রাণ লোকদের সেই বাণীর প্রতি আকৃষ্ট করান। তাঁরা তাঁর উপর বিশ্বাস স্থাপন করেন। তাঁরা দুনিয়া আখেরের সাফল্যের উদ্দেশ্যে তাঁর সাহাবি হোন, তাঁর সাহায্যকারী হোন। এই সাহাবীদের মধ্যে রয়েছেন তাঁর সহধর্মীগণ। তাঁদের জন্যও রয়েছে এক বিপুল মর্যাদার স্থান। যেহেতু রাসূল(সাঃ)এঁর জীবন ছিল ইসলামের জন্য নিবেদিত, তাই তাঁর বিবাহ-শাদিতেও ইসলামের প্রচার ও প্রসারের উদ্দেশও স্থান পেয়েছে। যারা তাঁর সহধর্মীনী হয়েছেন, তাঁরা দুনিয়া ও আখিরাতে সৌভাগ্যবান হয়েছেন, তাঁরা এক বিরাট মর্যাদার স্থানে এসেছেন। তাঁরা আর অন্যান্য নারীদের অবস্থানে থাকেননি। আল্লাহ নিজেই নবীর সহধর্মীনিদের অবস্থান ও মর্যাদার কথা উল্লেখ করে বলেন,
“হে নবী পত্নীগণ! তোমরা অন্য নারীদের মত নও।” (৩৩-৩২)
এখানে আল্লাহ যা স্পষ্ট করে দিয়েছেন তা হল এই যে নবী পত্নীগণ সেই অর্থে অন্যান্য নারীদের মত নন যে তারা যেখানে ইচ্ছা সেখানে চলাফেরা করতে পারবেন, এইভাবে চলা ফিরা করলে কোথাও আল্লাহর দ্বীনের কাজ ব্যাহত হতে পারে। তাদের এই বিশেষ অবস্থানের কারণে কিয়ামতে তাদের পুরস্কার দ্বিগুণ হবে আর এবং এই অবস্থান থেকে কোন অন্যায় করেন তাহলে তার জন্য শাস্তিও দ্বিগুণ হবে। আল্লাহ তাঁদেরকে এই অবস্থানের জন্য উম্মতে মুসলিমায় এক অতি উঁচু মর্যাদার আসনে সমাসীন করেছেন।
নবুয়তের অনেক আগ থেকেই আল্লাহ পাক খাদিজা(রাঃ)-কে তাঁর সহধর্মীনী হিসেবে নির্বাচন করেন, কেননা খাদিজা(রাঃ)এঁর মধ্যে এমনসব গুণাবলী ছিল যা সকল দুর্যোগপূর্ণ মুহূর্তে, দ্বীনের খেদমতে শীর উঁচু করে, স্থবির-চিত্তে অগ্রসর হওয়ার অনুকূল ছিল। খাদিজা(রাঃ) সমস্ত উম্মাহর মধ্যে সেরা সাহাবী এবং ব্যক্তিত্বশালী ছিলেন শুধু তাই নয় সর্বকালের সেরা চার মহিলার মধ্যে তিনিও ছিলেন একজন।
খাদিজা(রাঃ) পুরো নাম হচ্ছে খাদিজা বিনত খাওয়াইলিদ ইবনে আসাদ ইবনে আব্দেল ওজ্জা ইবনে কুসাই। তাঁর বংশতালিকা কুসাই পর্যন্ত গিয়ে মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর বংশের তালিকার সাথে মিলেছে। তিনি তাঁর মায়ের দিক দিয়েও সম্পর্কিত ছিলেন। তাঁর মায়ের বংশতালিকাও মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর ৭ম প্রপিতামহ লো’আই এর সাথে মিলিত হয়েছে। অতএব খাদিজা(রাঃ)-কে নবী(সাঃ)এঁর বংশের সব চেয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের স্ত্রী হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং এই স্ত্রীর সন্তান ফাতিমা(রাঃ) এবং জায়নাব(রাঃ) মাধ্যমে মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর বংশধরদের বিস্তৃতি বজায় রয়েছে।

প্রথমে আমরা খাদিজা(রাঃ)এঁর ইসলাম পূর্ব আভিজাত্য এবং সমকালীন সময়ে তাঁর মর্যাদা কত উঁচু ছিল তা দেখব।
প্রাক-ইসলামি মক্কী সমাজে নারীদের তেমন কোন সামাজিক মর্যাদা ছিলনা। সেই সময়ে নিজের জ্ঞান বুদ্ধি আর পরিশ্রম দ্বারা প্রতিকুল পরিবেশে তিনি সম্মানিত মহিলার স্থান অর্জন করেছিলেন এবং চরম অশ্লীলতায় ভেসে যাওয়া সমাজে তাঁর শালীনতা বোধ রক্ষা করে তাহিরা উপনামে খ্যাত হয়েছিলেন এবং ব্যবসায়িক জ্ঞানের দ্বারা বিশাল বাণিজ্য পরিচালক হিসাবে তিনি সুপরিচিত ছিলেন। ধীশক্তি আর সৌন্দর্যে, দৃঢ় চরিত্র এবং নরম হৃদয়ের সম্মিলন ছিলেন এই মহীয়সী, এই সমস্ত সকল গুণরাজি তাকে দিয়েছিল সূক্ষ্ম জ্ঞান এবং মানুষ আর ঘটনাকে বিচার করার পরিপক্ব ক্ষমতা।
খাদিজা(রাঃ) আমাদের মা, তিনি আমাদের ধর্মীয় বোনও বটে। তিনি আমাদের আদর্শ। তিনি ছিলেন তৎকালীন মক্কা নগরের অন্যতম ধনাঢ্য মহিলা। তাঁর এই ব্যতিক্রমধর্মী ব্যক্তিত্ব ছাড়াও তাঁর আর এক পরিচিতি ছিল- তিনি ইসলাম পূর্ব আরবে পৌত্তলিকতায় ভেসে যাওয়া সময়ে কখনও স্বজাতি আরও দশজনের মত মূর্তিপূজা করেন নাই।
খাদিজা(রাঃ) বিবেক বুদ্ধি, সৌন্দর্য, বংশ মর্যাদায় সেকালের শ্রেষ্ঠ নারী ছিলেন। যে মহিলাকে কুরাইশরা সম্মানের সাথে উপনাম দিয়েছিল, ‘তাহিরা’ অর্থাৎ ‘খাঁটি মহিলা’ (আল-ইসাবা)। আর যিনি এই ‘তাহিরা’কে বিয়ে করেছিলেন সেই মুহাম্মদ(সাঃ)কেও আরবের লোকেরা ‘বিশ্বস্ত’ ও ‘সৎ-চরিত্রের অধিকারী’ হিসেবে জানত। কারণ মুহাম্মদ(সাঃ) মিথ্যা কথা বলতেন না, ওয়াদার খেলাফ করতেন না, আমানতের খেয়ানত করতেন না, তাই তো সম্মান করে সবাই ডাকত ‘সাদিক’ ও ‘আল-আমিন’ অর্থাৎ ‘সৎ’ এবং ‘বিশ্বাসী’! আল্লাহ পাক কী চমৎকার মিলন ঘটিয়ে দিলেন দুই সেরা চরিত্রের মধ্যে!

মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর সাথে বিয়ের পূর্বে খাদিজা(রাঃ)এঁর দুই দুই বার বিয়ে হয়েছিল। প্রথম স্বামী ছিলেন আতেক আল- মাখযোমি, যিনি বিয়ের কয়েক বছর পর মারা গিয়েছিলেন। সেই বিয়ের তাদের দুইটি সন্তান ছিলেন: একজন ছেলে এবং অপরজন মেয়ে। দ্বিতীয় স্বামী ছিলেন আবু-হালা আল-তামিমি। এই স্বামীর ঔরসে তাঁর আরও দু-জন সন্তান ছিলেন। যখন দ্বিতীয় স্বামী মারা যান তখন খাদিজা(রাঃ)এঁর বয়স ৩৭ ছিল। (ইতিহাসে প্রথম স্বামী কোন্‌ জন ছিলেন, তা নিয়ে দ্বিমত পাওয়া যায়)।
প্রথম স্বামী মারা যাবার পর উত্তরাধিকার সূত্রে বিপুল সম্পত্তি লাভ করেছিলেন। (এই সম্পত্তি লাভের বিষয় নিয়েও ভিন্ন বর্ণনা পাওয়া যায়, আমরা ধরে নিচ্ছি যে, যেহেতু খাদিজা(রাঃ) এঁর বাবা ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ছিলেন তাই বাবার উত্তরাধিকার সূত্র থেকে পাওয়ার সম্ভাবনা নাকচ করা যাবেনা। পরবর্তীতে স্বামীদের কাছ থেকেও সম্পত্তি লাভ করে থাকবেন)। যেহেতু তিনি বুদ্ধিমতী ছিলেন তাই এই সমুদয় সম্পত্তি ব্যবসায় নিয়োগ করেন। চরম পুরুষবাদী সমাজে একজন নারী হয়েও প্রতিকুল পরিবেশে অত্যন্ত দক্ষ-হস্তে ব্যবসাকে সম্বৃদ্ধ করে তোলেন এবং ক্রমান্বয়ে এক সময় মক্কার সেরা ব্যবসায়ীতে পরিণত হোন।

দ্বিতীয় বারের বিধবা, কয়েক সন্তানের মা এবং বয়স ৩৭ হওয়া সত্ত্বেও মক্কার কত গণ্যমান্য তরুণ, সুদর্শন যুবক, বীর যোদ্ধা, ধনী আমির তাঁকে বিয়ে করার প্রস্তাব নিয়ে এসেছিলেন কিন্তু তিনি সেই প্রস্তাবগুলো কঠোর ভাবে ফিরিয়ে দিয়ে ছিলেন। কারণ দুই স্বামীর অকাল মৃত্যুর জন্য তিনি আবার বিয়ে না করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলেন। তাই দ্বিতীয় স্বামীর মৃত্যুর পর ৩ বছর পর্যন্ত একা ছিলেন। তাঁর কাছে শুধু তাঁর ছোট ছেলে হিন্দ ছিল বাকি ৩ সন্তানকে আগেই বিয়ে দিয়ে দিয়েছিলেন।
তখন যেহেতু তাঁর স্বামী নেই, তার বিশাল ব্যবসা বাণিজ্য তদারকির জন্য একজন নির্ভরযোগ্য বিশ্বাসী লোকের খোঁজ করছিলেন যাকে তাঁর আগামী সিরিয়াগামী বিরাট বাণিজ্য কাফেলার দায়িত্ব দিতে পারেন। সারা মক্কায় সেদিনের সমাজে যে ব্যক্তিকে একমাত্র সৎ হিসেবে জানা ছিল সেই ব্যক্তিটি ছিলেন যুবক মুহাম্মাদ(সাঃ)। তখন তাঁর বয়স মাত্র ২২ বছর ছিল। খাদিজা(রাঃ) তখন এই যুবক মুহাম্মদ(সাঃ)কে এই পদে নিয়োগ দানের কথা ভাবছিলেন।

সে বছর আরবে দারুণ দুর্ভিক্ষ চলছিল, আবু তালিব অর্থনৈতিক দুঃসময়ে তাকে সাহায্য করার জন্য খাদিজা (রাঃ) বাণিজ্য কাফেলার দায়ীত্ব নেবার জন্য মুহাম্মদ (সাঃ)-কে উপদেশ দেন। এই আবু তালিব তাঁকে শিশুকাল থেকে পিতৃ-স্নেহে লালন-পালন করে বড় করেছিলেন। কিন্তু মুহাম্মদ (সাঃ) নিজ থেকে উপযাচক হয়ে তা করতে রাজী হোন নাই, তিনি উত্তর দিলেন- খাদিজা(রাঃ) যদি নিজ থেকে প্রয়োজন মনে করেন তাহলে তিনি নিজেই প্রস্তাব পাঠাবেন। আবু তালিব মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর জবাব শুনে শঙ্কিত হলেন এই ভেবে যে, খাদিজা(রাঃ) ঐ পদের হয়তো অন্য কাউকে নিয়োগ দিয়ে দিবেন। তাই তিনি নিজ থেকেই খাদিজা(রাঃ)এর কাছে এসে পরামর্শ দিলেন- আপনি কি মুহাম্মদ(সাঃ)এর কাছে আপনার সিরীয়াগামী কাফেলার দায়ীত্ব নেবার প্রস্তাব করতে পারবেন? খাদিজা(রাঃ) তাঁর উত্তরে জানান- আপনি যদি এক অপরিচিত কাউকে প্রস্তাব করতেন তা আমি রাখতাম, কিন্তু আপনি যার নাম উল্লেখ করেছেন তাকে কেন আমি প্রস্তাব করতে যাবনা?

খাদিজা(রাঃ) তাঁর সিরিয়াগামী বাণিজ্যিক কাফেলার ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নেবার জন্য যুবক মুহাম্মদ(সাঃ)কে প্রস্তাব দেন। এবং তাঁকে অন্য লোকদের চেয়ে দ্বিগুণ পারিশ্রমিক দেবার কথা উল্লেখ করেন। মুহাম্মদ(সাঃ) সেই প্রস্তাব গ্রহণ করেন।
খাদিজা(রাঃ) এঁর এক বালক দাস ছিল, যার নাম ছিল মায়সারা। তিনি মায়সারাকে এতই বিশ্বাস করতেন যে তাকে নিজ ‘চোখ’ বলে বিবেচনা করতেন। মায়সারা বাণিজ্যিক কাফেলার খবরদারীর দায়িত্বে থাকতেন। মুহাম্মদ(সাঃ)এর নেতৃত্বে এবং মায়সারার তত্ত্বাবধানে সে-বার খাদিজা(রাঃ)এঁর বাণিজ্যিক কাফেলা সিরিয়ায় যায়। প্রত্যাশার অধিক মুনাফা নিয়ে মুহাম্মদ(সাঃ) মক্কায় ফিরে আসেন। খাদিজা(রাঃ) এহেন বাণিজ্যের ফলাফল দেখে চমকিত হোন। তিনি মায়সারাকে ডেকে মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর কাজ কর্ম সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন: বাণিজ্যে সফরের সময় তাঁর ব্যবহার কেমন ছিল, দীর্ঘ বাণিজ্য যাত্রায় তিনি কী কী করেছিলেন ইত্যাদি।
পরবর্তি সময়ে তিনি মুহাম্মদ(সাঃ)কে আবার ইয়ামেন বাণিজ্য কাফেলা দিয়ে পাঠান, সেই কাফেলায়ও মুহাম্মদ (সাঃ) তাঁর নিজস্ব বাণিজ্যিক দক্ষতার দ্বারা প্রচুর লাভ অর্জন করেছিলেন ।

খাদিজা(রাঃ) বাণিজ্য চলাকালে আমানতদারিতা,ব্যবসায় কর্মরত সকল কর্মীদের সাথে ন্যায় পরায়ন ব্যবহার, নির্লোভ, নির্মোহ এবং ব্যবসায় তীক্ষ্ণ ধীর অধিকারী মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর ব্যাপারে সচেতন ছিলেন। তাঁর আচার-আচরণ, ন্যায়-নিষ্ঠা, কোমল ব্যবহার ইত্যাদি গভীরভাবে নিরীক্ষণ করতে থাকেন। এমন বিরল প্রতিভার অধিকারী ব্যক্তিকে তখন নিজের করে নেবার ইচ্ছা খাদিজা(রাঃ)এর অন্তরে জাগে। খাদিজা(রাঃ) যেহেতু উচ্চ বংশের সম্মানিত মহিলা ছিলেন তাই তিনি মুহাম্মাদ(সাঃ)কে স্বামী হিসাবে পাবার ইচ্ছা লালন করলেও সরাসরি বিয়ের প্রস্তাব না দিয়ে সংযমের সাথে অন্যের মাধ্যম ব্যবহার করেন। তিনি তাঁর ঘনিষ্ঠ বিশ্বস্ত বান্ধবী নাসিফা বিনত মুনিয়ার কাছে কৌশলে বিষয়টি তুলে ধরেন। খাদিজা(রাঃ) নাসিফা(রাঃ)কে জানালেন যে মুহাম্মদ(সাঃ) হচ্ছেন একজন অসামান্য, অনন্য চরিত্রের অধিকারী ব্যক্তিত্ব। তবে তাঁর মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর প্রতি কোন প্রেম বা অনুরাগের কথা উল্লেখ করেন নাই। নাসিফা(রাঃ) নিজেও জানতেন মুহাম্মদ(সাঃ) কে ছিলেন, কেমন ছিলেন। খাদিজা(রাঃ) এঁর মুখ থেকে প্রশংসা শুনেই নাসিফা(রাঃ) বলে উঠেন- আমি বিশ্বাস করি, মুহাম্মদ(সাঃ) হতে পারেন তোমার জন্য চমৎকার এক স্বামী। পাঠক, লক্ষ্য করুন, এটি ছিল নাসিফা(রাঃ)এঁর নিজের ধারণা। তারপর নাফিসা(রাঃ) এই বিষয়ে মধ্যস্থতা করার জন্য খাদিজা(রাঃ) অনুমতি চাইলেন। খাদিজা(রাঃ) তাকে সেই অনুমতি দিলেন।
নাসিফা(রাঃ) মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর কাছে যান এবং তার একান্ত বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তারপর এক পর্যায় জানতে চান,- আপনি বিয়ে করছেন না কেন? (তবে কোন অবস্থায় খাদিজা(রাঃ) এঁর বিষয়ে কিছু বলেন নাই)। সে সময় মুহাম্মদ(সাঃ) বয়স হয়েছিল মাত্র ২৫ বছর।

যে সমাজে যৌনতা ছিল ডাল-ভাত, যেখানে যৌনতাকে পূজা অর্চনা করার রেওয়াজ ছিল, সেই সমাজে মুহাম্মদ(সাঃ) ছিলেন সুদর্শন যুবক, গড় উচ্চতার সুগঠিত শরীর ছিল তাঁর, মাথার চুল আর দাড়ি ছিল ঘন কালো এবং কোঁকড়ান, চেহারায় ছিল উজ্জ্বল অভিব্যক্তি যা বিশেষ ভাবে সবার নজর কাড়ত। (মুহাম্মদ(সাঃ )মহানবীর জীবনী – ক্যারেন আর্মস্ট্রং পৃঃ ৮৯) অধর কান্তি সুন্দর সুদর্শন এক যুবক থাকা সত্ত্বেও তাঁর সেই জীবনের ২৫ বছর পর্যন্ত কখনও কোন নারীর সান্নিধ্যে কাটান নাই।

মুহাম্মদ(সাঃ) নাফিসা(রাঃ)এঁর প্রশ্নের জবাবে জানান- বিয়ে করার জন্য যে অর্থ-বিত্তের দরকার, তা এখনও আমি অর্জন করতে পারিনি। নাসিফা(রাঃ) জিজ্ঞাস করেন,- যদি আপনার বিয়েতে সেই অর্থ-বিত্তের দরকার না পড়ে, আর যদি একজন অর্থশালী, সুন্দরী মহিলা কোন কিছুর দাবী ছাড়াই আপনাকে বিয়ে করতে চান, তাহলে আপনার কি অভিমত?
মুহাম্মদ(সাঃ) প্রশ্ন করেন, কে সেই মহিলা?
নাসিফা(রাঃ) জবাব দেন, খাদিজা(রাঃ)!
সাথে সাথে জানতে চান- খাদিজা(রাঃ) কি আমাকে গ্রহণ করবেন?
নাসিফা(রাঃ) বলেন- আমি তাকে জিজ্ঞাসা করতে পারি।
তারপর, তিনি সেই শুভ সংবাদ নিয়ে খাদিজা(রাঃ) এঁর কাছে ফিরে আসেন।
পাঠক, এখান থেকে শুরু হয়েছিল পৃথিবীর এক অমর সম্পর্কের আখ্যান। সে আখ্যানে তাঁদের বিবাহিত জীবনের ২৫টি চমকপ্রদ বছর কেটে গিয়েছিল এবং তা খাদিজা(রাঃ) ওফাতের পরও ১৫টি বছর পর্যন্ত বহাল রয়ে গিয়েছিল। ইতিহাসে কোথাও এমন একটি বাক্য নেই যেখানে মুহাম্মদ(সাঃ) এমন কোন নেতিবাচক শব্দ প্রয়োগ করে গিয়েছিলেন এই খাদিজা(রাঃ) সম্পর্কে! এখানেও আল্লাহর এক কারিশমা কাজ করেছে বলে আমার বিশ্বাস। না হলে, বাস্তব দুনিয়ায় দু’বারের এক বিধবা, যিনি কয়েক জন সন্তানের মা এবং যুবক স্বামীর চেয়ে ১৫ বছরের বেশী বয়সী স্ত্রীর সাথে দাম্পত্য জীবন অনাবিল শান্তিতে ২৫ বছর কেমন করে কাটতে পারলেন?

বিয়ের চিরন্তন ও শাশ্বত রীতি অনুযায়ী মুহাম্মদ(সাঃ) তাঁর চাচা আবু তালিবকে সব জানান। এই বিয়ে খাদিজা(রাঃ) এঁর সম্মতি জানতে পেরে আবু তালিব যথা নিয়মে খাদিজা(রাঃ)এঁর চাচা আমর বিন আছের কাছে বিয়ের প্রস্তাব পেশ করেন। সকলের সম্মতিক্রমে বিয়ের দিন তারিখ এবং মোহর ঠিক হয়। পাঁচশত স্বর্ণ মুদ্রা মোহর ধার্য করা হয়। খাদিজা(রাঃ) নিজেই উভয় পক্ষের যাবতীয় খরচ বহন করেন। তিনি দুই উকিয়া সোনা ও রুপো মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর নিকট পাঠান এবং তা দিয়ে উভয়ের পোশাক ও ওয়ালিমার বন্দোবস্ত করেন। এভাবেই নবুয়তের পরবর্তীতে হযরত খাদিজা(রাঃ) মুসলিম উম্মাহর প্রথম ‘উম্মুল মোমেনিন’, মু’মীনগণের মা হবার সম্মান অর্জন করেন।

মক্কার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে দু’জনের শুভ বিবাহ সম্পন্ন হয়। এই বিয়েতে আবু তালিব যে খুৎবা পাঠ করেন আরবি সাহিত্যের মানের দিক দিয়ে এ খুৎবা জাহেলী যুগের আরবি গদ্য সাহিত্যে বিশেষ স্থান দখল করে। সেই খুৎবার উত্তর প্রদান করেছিলেন খাদিজা(রাঃ) এঁর চাচাতো ভাই ওয়ারাকা বিন নওফেল। (মোস্তফা চরিত ২৮৫/২৮৬)
ইতিহাসের পাতায় তাদের বিয়ের পর থেকে মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর নবুয়াতী লাভ পর্যন্ত ১৫ বছরের শুধু হাজরে আসওয়াদ এর ঘটনা ছাড়া আর তেমন কোন কিছুর উল্লেখ পাওয়া যায়না। তবে উল্লেখ আছে যে ঐ সময়ের মধ্যে তাঁদের চার কন্যা: জায়নাব(রাঃ), রোকাইয়া(রাঃ), উম কুলসুম(রাঃ), ফাতিমা(রাঃ) এবং দুই পুত্র: আল কাসেম, আব্দুল্লাহ বা আল তাহেরের জন্মের কথা। আরও জানা যায় তাদের প্রতিপালক পুত্র ছিলেন আলি ইবনে আবি তালিব(রাঃ), জাইদ ইবনে হারিস(রাঃ), আল যুবায়ের ইবনে আওয়াম(রাঃ)পালক পুত্রদের এবং হিন্দ(রাঃ) নামক খাদিজা(রাঃ)এঁর আগের পক্ষের পুত্রকে লালন পালনের কথা। আমরা অনুধাবন করতে পারি এত বড় পরিবারের তত্ত্বাবধান করতে খাদিজা(রাঃ) কত ব্যস্ত ছিলেন! উপরে উল্লেখিত ব্যক্তিরা পরবর্তীতে ইসলামের ইতিহাসে নিজ নিজ গুণে ঐতিহাসিক নেতৃত্বের ভূমিকায় আসেন। তারা সেই পর্যায়ে উপনীত হওয়ার পিছনে খাদিজা(রাঃ) এঁর ভূমিকা ছিল ব্যাপক।

খাদিজা(রাঃ) এঁর বয়স যখন ৫০ বছরের উপরে তখন থেকেই মুহাম্মদ(সাঃ) নির্জন এলাকায় ধ্যান-সাধনার মগ্ন এবং ঘর সংসারের প্রতি উদাস হয়ে পড়েন। সাধনার উদ্দেশ্যে কয়েক সপ্তাহের জন্য শহরের কোলাহল থেকে দূরে গিয়ে জবল-ই-নুর পাহাড়ের হীরা নামক এক গুহায় নির্জন-বাস শুরু করেন। সেই সময়ে খাদিজা(রাঃ)ও তাঁর স্বামীর ধ্যান-তপস্যায় যেন কোনরূপ বিঘ্নতা না হয় সেদিকে সব সময় নজর রাখতেন। সেই বয়সে স্বামীর জন্য খাদ্য পানীয় এবং আনুষঙ্গিক ব্যবহার্য অন্যান্য উপকরণ নিজে বহন করে সেই উঁচু পাহাড়ের গুহায় নিয়ে যেতেন। আজকালকার অনেক স্ত্রীদের মত তিনি কখনও এই নিয়ে স্বামীর প্রতি অভিযোগ করে নাই, ‘কেমন মানুষ আপনি? সারাদিন পাহাড়ে বসে বসে হাওয়া খাচ্ছেন! বলি সংসারের দায়-দায়িত্ব বলতে কি স্বামীর জন্য কিছু নেই! আমি কি স্ত্রী হয়ে এসেছি সারাদিন বাচ্চাকাচ্চার ফাই-ফরমাশে দাসীর মত কাজ করে যাবার জন্য?’ না, তিনি কখনও এমন কথা বলেন নাই। বরং তিনি যেমন স্বামীর সেবা যত্ন করতেন তেমনি স্বামীর প্রতিটি কাজে-কর্মে একবাক্যে সমর্থন এবং সহযোগিতা করে যেতেন।
একটি রাতের কথা!

মুহাম্মদ(সাঃ) সবে মাত্র ৪০ বছর বয়সে পা দিয়েছেন এবং খাদিজা(রাঃ) ৫৫ বছর বয়স। সেই অভিজ্ঞতা কথা স্বয়ং মুহাম্মদ সাঃ এঁর মুখে শুনুন:
‘সে রাতে আমি ছিলাম গুহায়। আমি দেখতে পেলাম জিবরাঈল(আঃ) আমার পাশে দাঁড়ানো, এবং আমাকে আলিঙ্গন করে চাপ দিয়ে বললেন, পড়! আমি জানালাম, আমি তো পড়তে জানিনা। তখন তিনি আমাকে ছেড়ে দিয়ে আবার আলিঙ্গনের দ্বারা চাপ দিলেন এবং সেই চাপের কারণে আমি অনুভব করলাম যেন আমি মারা যাচ্ছি। তিনি আবার বললেন, পড়! আমি বললাম, আমি তো পড়তে জানিনা। তিনি আমাকে ছেড়ে দিয়ে এবার আরও অধিক জোরে আমাকে চাপ দিয়ে বললেন, পড়! তখন আমি জানতে চাই কি আমি পড়ব? তিনি বললেন, পড় তোমার সৃষ্টিকর্তার নামে– قْرَأْ بِاسْمِ رَبِّكَ الَّذِي خَلَقَ পড়ো! (হে নবী), তোমার রব এবং পালন কর্তার নামে ৷ যিনি সৃষ্টি করেছেন৷’ (কোরআন: ৯৬:০১)
৬১০ খ্রিষ্টাব্দের রমজান মাসে প্রাপ্ত এই একটি মাত্র বার্তা পৃথিবীর ইতিহাসের চাকাকে নতুন মোড়ে ঘুরিয়ে দিয়েছিল । এই বার্তা দিয়েই নতুন জীবন ব্যবস্থা ইসলামের পৃথিবীতে সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করার যাত্রা শুরু হয়েছিল। যখন জিবরাইল(আঃ) অদৃশ্য হয়ে গেলেন।মুহাম্মদ(সাঃ) এত ভয় পেয়ে যান যে সারা শরীরে কম্পন শুরু হয়। তিনি বুঝতে পারছিলেন না আসলে কি ঘটে গেয়েছিল। তিনি দ্রুততার সাথে মক্কায় ফিরে ফিরে আসেন। এই অবস্থায় তিনি তাঁর প্রাণের বন্ধু আবু বকর রাঃ এর কাছে পরামর্শের জন্য ছুটে যাননি, যাননি বিজ্ঞ অভিজ্ঞ প্রবীণ ব্যক্তিত্ব তাঁর আপন চাচা আবু তালিবের কাছে যিনি তাঁকে লালন পালন করে বড় করেছিলেন। তিনি শুধু ছুটে গিয়েছিলেন তাঁর স্ত্রী খাদিজা(রাঃ)এঁর কাছে!
থর থর করে কাঁপতে কাঁপতে নিজ ঘরে হামাগুড়ি দিয়ে প্রবেশ করেই খাদিজা(রাঃ) কোলে ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং কম্বল দিয়ে নিজের গা জড়িয়ে দেয়ার জন্য বলেন। বারবার বলতে থাকেন, ‘আমাকে আবৃত কর!’ ‘আমাকে আবৃত কর!’ খাদিজা(রাঃ) স্বামীর এই অবস্থা দেখে তাঁকে গভীর ভাবে জড়িয়ে রাখলেন। কম্পিত দেহের শঙ্কা কমানোর চেষ্টা করলেন, অভয় দিলেন, আশংকা দূর করার চেষ্টা করলেন। জিজ্ঞাস করেন, আপনার কি হয়েছে তো বলুন? তিনি জবাব দিলেন যে, সম্ভবতঃ শয়তান আমাকে আশ্রয় করেছে! সাথে সাথে এই সম্ভাবনার কথা খাদিজা(রাঃ) নাকচ করে দিয়ে বলেন, না, আল্লাহর কসম, তিনি এই ভাবে আপনার মর্যাদাহানি করতে পারেন না! খাদিজা(রাঃ) তাঁর স্বামীকে অকুণ্ঠচিত্তে সমর্থন দিলেন এবং স্বামীকে দিলেন তাঁর দ্ব্যর্থহীন আস্থা। সংকট কালে খাদিজা(রাঃ) উপর মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর গভীর নির্ভরশীলতা ছিল। (এই ভাবে উম্মতে মুহাম্মদীর সকল পুরুষের উচিত তাদের স্ত্রীদের উপর নির্ভর করা) খাদিজা(রাঃ) সর্বপ্রথম নবী মুহাম্মদ(সাঃ) পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। খাদিজা(রাঃ)ই তাঁকে নবী হিসাবে প্রথম তাঁকে অনুসরণ করেন এবং তিনিই প্রথম ব্যক্তি যিনি ইসলামী রীতি রেওয়াজ চর্চা শুরু করেন।(উম্মতে মুহাম্মদীর নারীদেরও উচিত সংকটকালে খাদিজা(রাঃ)এঁর মত স্বামীর পাশে দাঁড়ানোর।)
ভীতি দূর করার জন্য মুহাম্মদ(সাঃ)কে নিয়ে খাদিজা তাঁর চাচাতো ভাই ওয়ারাকা ইবনে নওফেলের কাছে যান। সেই জাহেলী যুগে তিনি খৃষ্ট ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন। হিব্রু ভাষায় ইনজিল কিতাব লিখতেন। তিনি তখন বৃদ্ধ ও দৃষ্টিহীন। এই সেই নওফেল যার আপন বোন কাতিলা বিনত নওফেল একদিন মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর পিতা আব্দুল্লাহর কাছে বিয়ে বসার জন্য নিজেই আব্দুল্লাহকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন। আবার তার চাচাতো বোন খাদির(রাঃ)কে দেখতে পেয়েছি যিনি মুহাম্মদ(সাঃ) কে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন। (শিবলী নুমান-বিশ্ব নবীর জীবনী পৃঃ ৭৪৪)। খাদিজা(রাঃ) ওরাকাকে বললেন- শুনুন আপনার ভাতিজা কি বলে। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, ভাতিজা, তোমার বিষয় কি? মুহাম্মদ(সাঃ) পুরো ঘটনা বর্ণনা করলেন। শুনে ওয়ারাকা বললেন- এই তো সেই ‘নামুস’ (ফেরেশতা), আল্লাহ যাকে মুসা(কঃ)র নিকট পাঠিয়েছিলেন। নওফেল তাঁকে শেষ নবী হিসেবে আখ্যায়িত করেন। তারপর জানান- আফসোস! সেদিন তোমার দেশবাসী তোমাকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দিবে। মুহাম্মদ(সাঃ) জিজ্ঞেস করলেন, এরা আমাকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দিবে? তিনি বললেন- হ্যাঁ, তুমি যা নিয়ে এসেছ, যখনই কোন ব্যক্তি তা নিয়ে এসেছে, সারা দুনিয়া তাঁর বিরোধী হয়ে গিয়েছে। যদি সে সময় পর্যন্ত আমি বেঁচে থাকি, তোমাকে সব ধরনের সাহায্য করব, কিন্তু এই ঘটনার অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ওয়ারাকার মৃত্যু হয়।
খাদিজা(রাঃ) রাসূল (সাঃ)এঁর উপর প্রত্যাদেশ অবতরণের পর বুঝতে পারেন যে,এটি প্রতিষ্ঠা করতে হলে তাঁর স্বামীকে পুরো আরবের সকল সমাজের মানুষের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড়াতে হবে। (কারণ তৎকালীন পৌত্তলিক নেতৃত্বের ভীত ধ্বংস করা ব্যতীত ইসলাম প্রচার ও প্রতিষ্ঠার অন্য কোন উপায় ছিলনা) তখন থেকে দিন-রাত্রি তিনি তাঁর পরিচিত জনদের মধ্যে ইসলামের বার্তাকে প্রসারিত করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। তিনি অনেক টাকা পয়সা খরচ করে আরও অনেক দাস ক্রয় করেন মুহাম্মদ(সাঃ)কে নিরাপদ রাখার জন্য। আবু লাহাবের (যিনি মুহাম্মদ(সাঃ) আপন চাচা ছিলেন) দুই ছেলের সাথে মুহাম্মদ(সাঃ) দুই মেয়ে রোকাইয়া(রাঃ) উম কুলসুম(রাঃ) বিয়ে হয়েছিল। (খুব সম্ভব তখন রোকাইয়া(রাঃ) এর বয়স ৯ এবং উম কুলসুম(রাঃ)এঁর বয়স ৭ বছর ছিল) মেয়ে দুইজন মুসলিম হয়ে যাবার কারণে সে বিয়ে ভেঙ্গে যায়। পরবর্তীতে রোকাইয়া(রাঃ) এঁর সাথে উসমান ইবনে আফফান(রাঃ) এঁর সাথে বিয়ে হয়। পরে স্বামীর সাথে হাবাসা হিজরত করেন।
নামায ফরয হওয়ার হুকুম তখনও নাযিল হয়নি। হযরত খাদিজা(রাঃ) এর ঘরের মধ্যে মুহাম্মদ(সাঃ) এর সাথে সেই প্রথম থেকেই নামায আদায় করতেন। ইবনে ইসহাক উল্লেখ করেছেন, একদিন আলী(রাঃ) দেখতে পেলেন তাঁরা দু’জন অর্থাৎ নবী(সাঃ) ও খাদিজা(রাঃ) নামায আদায় করছেন। আলী(রাঃ) জিজ্ঞেস করলেন- মুহাম্মদ(সাঃ) এ কি? মুহাম্মদ(সাঃ) তখন নতুন দ্বীনের দাওয়াত আলীর কাছে পেশ করলেন এবং এ কথা কাউকে বলতে নিষেধ করলেন। এ বর্ণনা দ্বারা বুঝা যায় যে, উম্মতে মুহাম্মদী(সাঃ) এঁর মধ্যে সর্ব প্রথম খাদিজা(রাঃ) রাসুলুল্লাহ(সাঃ) এঁর সাথে নামায আদায় করার গৌরব অর্জন করেন।
আফীফ আল- কিন্দি নামক এক ব্যক্তি কিছু কেনা-কাটার জন্য মক্কায় এসেছিলেন। তিনি হযরত আব্বাস(রাঃ )বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। একদিন সকালে লক্ষ্য করলেন, এক যুবক কা’বার কাছে এসে আসমানের দিকে তাকালো। তারপর ক্বিবলামুখী হয়ে দাঁড়াল। একজন কিশোর এসে তার পাশে দাড়িয়ে গেল। তারপর চলে এল এক মহিলা সেও তাঁদের পিছনে দাঁড়াল। তাঁরা নামায শেষ করে চলে গেল। দৃশ্যটি আফীফ কিন্দী দেখলেন। আব্বাস(রাঃ) কে তিনি জিজ্ঞাস করলেন- বড় রকমের একটা কিছু ঘটতে যাচ্ছে? আব্বাস(রাঃ) বললেনঃ -হ্যাঁ। তিনি আরও বললেন, এ যুবক আমার ভাতিজা মুহাম্মদ(সাঃ), কিশোরটি আমার আরেক ভাতিজা আলী(রাঃ) এবং মহিলাটি মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর স্ত্রী, … আমার জানামতে দুনিয়ায় তারা তিনজনই নতুন ধর্মের অনুসারী।
ইসলামের কাজে অনেক টাকা ব্যয় হচ্ছিল। তাই রাসূলকে (সাঃ) একদিন বিমর্ষ দেখায়। খাদিজা জিজ্ঞেস করেন- কি ব্যাপার, মন খারাপ করে বসে আছেন যে? তিনি বলেন- আমি যে দীনি কাজে তোমার টাকা খরচ করে যাচ্ছি। তখন খাদিজা কোরেশের কিছু লোকজনকে ডেকে ধনসম্পদ বের করে বলেন-‘আমার যা কিছু ছিল এ মুহূর্তে সবই আপনার। আপনি যেভাবে ইচ্ছা তা ব্যয় করতে পারেন। আমি কেবল আপনার সেবায় থাকতে চাই। ‘ খাদিজা(রাঃ) এঁর এই ঘোষণার পর মুহাম্মদ(সাঃ) মক্কার শ্রেষ্ঠ ধনীদের একজন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। কিন্তু খাদিজা(রাঃ) এর দেয়া ধনসম্পদ তিনি ব্যক্তিগত ভোগ-বিলাসে ব্যয় করলেন না। সকল ধনসম্পদ তিনি এতিম, মিসকিন, অভাবী ও অনাথদের মাঝে বিলিয়ে দিলেন। এভাবে ধন-সম্পদ বিলিয়ে দেয়ার পরও তাঁদের দাম্পত্য জীবন ছিল অত্যন্ত মধুর।
এই ইসলামী আন্দোলনে জড়িয়ে পড়ার কারণে খাদিজা(রাঃ) সম্পদ দ্রুত কমে যেতে লাগল, কিন্তু তাঁদের হৃদয় আগের চেয়ে আরও বেশী একতাবদ্ধ হতে থাকে। এরপর ৬১৬ খ্রিঃ তাঁদের উপর নেমে আসে চরম দুর্দশা, যখন কুরাইশরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তারা আবি তালিবের পুরো গোত্র এবং মুহাম্মদ(সাঃ) এঁর অনুসারীদেরকে শাস্তি দিতে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করবে। এর ফলে মক্কার কোন গোত্র তাদের সাথে কোনও প্রকার সামাজিক ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ রাখতে পারবে না। সম্পূর্ণ বয়কট। এভাবে তাদেরকে তিন বৎসর ‘ শিয়াবে আবু তালিব’ নামক গিরিখাতে অবরোধ করে রাখা হয়। সেই অবরোধের সময় তারা চরম অনাহারে থাকতে হয়েছেন। এমন কি ক্ষুধা নিবারণ করতে গিয়ে গাছের শুকনা পাতা পর্যন্ত তাদের খেতে হয়েছিল। এবং এই পাতাগুলো খাদিজা(রাঃ) সংগ্রহ করে এনেছিলেন যদিও তাঁকে কুরাইশদের অবরোধের আওতা থেকে মুক্ত রাখা হয়েছিল। কিন্তু ধনাঢ্য মহিলা তাঁর মুসলিম অনুসারীদের সাথে ক্ষুধার জ্বালাকে বরণ করে নেন এবং ক্রমান্বয়ে ভয়ানক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। কুরাইশদের কিছু লোক যারা খাদিজা(রাঃ)এঁর আত্মীয় ছিলেন। তারা তার এই অবস্থা দেখে এই চিন্তায় পড়েন। তারা ভাবেন, খাদিজা(রাঃ) হয়তো মারা যেতে পারেন। আর এটা ঘটলে তাদের জন্য চরম মর্যাদাহানি হবে। তখন তারা লুকিয়ে লুকিয়ে তাঁর কাছে খাদ্য পাঠাতে শুরু করেন। এই তিনজন হলেন: তাঁর ভাতিজা-হাকিম ইবনে হিযাম, আবুল বুখতারী ও যুমআ ইবনুল আসওয়াদ। তাঁরা সকলে ছিলেন কুরাইশ নেতৃবর্গের অন্যতম। অমুসলিম হওয়া সত্ত্বেও তাঁরা বিভিন্নভাবে মুসলমানদের কাছে খাদ্য-শস্য পাঠাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। একদিন হাকিম ইবনে হিসাম তাঁর চাকরের মাধ্যমে ফুপু খাদিজা(রাঃ) এঁর কাছে কিছু গম পাঠাচ্ছিলেন। পথে আবু জাহেল বাধা দেয়। হঠাৎ আবুল বুখতারী সেখানে উপস্থিত হন। তিনি আবু জাহেলকে বললেন- এক ব্যক্তি তাঁর ফুপুকে সামান্য খাদ্য পাঠাচ্ছে, তুমি তাঁকে বাধা দিচ্ছ?

এই খাদ্যগুলো তিনি না খেয়ে অবরুদ্ধ মুসলিমদের মাঝে বিলিয়ে দিতেন। এমনকি যখন তিনি বুঝতে পারলেন যে তাঁর সময় শেষ হয়ে আসছে, তখনও তিনি ইসলামে প্রতি আহ্বান জারি রাখেন। ৬১৯ খ্রিঃ ১০ই রমজান যখন মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর অতি প্রিয়তম স্ত্রী মারা যাচ্ছেন তখন জিবরাইল(আঃ) তাঁর নিকট আসেন এবং বলেন- হে মুহাম্মদ(সাঃ) আপনি খাদিজা(রাঃ)কে আল্লাহর তরফ সালাম পৌঁছান। তাঁকে জানিয়ে দিন যে, আল্লাহ তাঁর জন্য বেহেস্তে মুক্তা দিয়ে দুর্গ বানিয়ে রেখেছেন, যেখানে কোন ধরণের গোলমাল এবং যন্ত্রণা থাকবেনা। বলা হয়ে থাকে জান্নাতের পুরস্কার তাঁর জন্য দুনিয়াতে থাকতেই নির্ধারিত করে দেওয়া হয়েছিল এবং এইটি ছিল তাঁর প্রাপ্য। জানাজা নামাযের বিধান তখনো চালু হয়নি। সুতরাং বিনা জানাজায় তাঁকে মক্কার কবরস্থান জান্নাতুল মুয়াল্লায় দাফন করা হয়। মুহাম্মদ(সাঃ) নিজেই তাঁর লাশ কবরে নামান।
মুহাম্মদ(সাঃ) খাদিজা(রাঃ)এঁর ওফাতের কারণে হত-বিহ্বল হয়ে পড়েন।সেই একই সময়ে তাঁর চাচা আবু তালিবও মারা যান। সাহেবায়ে কেরামগণ সেই বছরকে দুঃখের বছর বলে উল্লেখ করেন। অন্য যে কারো চেয়ে খাদিজা(রাঃ) এঁর জন্য তাঁর ভালবাসা তাঁর হৃদয়ে গভীরভাবে আজীবন সতেজ এবং উজ্জ্বল থাকে।

অনেক বছর পর একদিন নবী (সাঃ)এঁর সাথে আয়েশা(রাঃ) বসা ছিলেন। তখন কেউ একজন দরজায় করাঘাত করে ভিতরে আসার অনুমতি প্রার্থনা করে। তখন মুহাম্মদ(সাঃ) বলে উঠেন, খাদিজা(রাঃ)! এবং দ্রুত উঠে দরজা খুলার সময় বলেন- ও আল্লাহ এই যেন হা’লা হয়! হা’লা ছিলেন খাদিজা (রাঃ)এঁর বোন। আর সত্যিই তখন হা’লাই এসেছিলেন। আর হালাহ(রাঃ) কণ্ঠস্বর ছিল বিবি খাদিজা(রাঃ) এর কণ্ঠের মত। যখন তিনি পশু কুরবানি দিতেন তখন তাঁর গোস্ত উপহার স্বরূপ খাদিজা(রাঃ) পরিচিত মহলে পাঠিয়ে দিতেন। এর এই কারণে আয়েশা(রাঃ) খাদিজা(রাঃ)কে ঈর্ষা করতেন। একদিন সেটি প্রকাশ করে ফেলেন। বললেন- খাদিজা, মনে হচ্ছে সমগ্র পৃথিবীতেই শুধু খাদিজা। মুহাম্মদ(সাঃ) উত্তর দেন- আয়েশা, এইভাবে খাদিজাকে নিয়ে কথা বলবে না। আমি তাকে ভালবাসি এবং যে তাকে ভালবাসবে আমি তাকে ভালবাসব।

আরেক সময়ের একটি ঘটনা। মুসলিমগণ মুহাম্মদ(সাঃ) মেয়ের স্বামীকে বন্দী করে। তার নাম আল-আস ইবনে আল- রাবী। তিনি মুসলিম ছিলেন না এবং মুসলিমদের বিপক্ষে বদর যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন। আল-আস ধরা পড়ার পর তার স্ত্রী জায়নাব (রাঃ) (মুহাম্মদ(সাঃ)এঁর বড় মেয়ে) তাকে মুক্তিপণ দিয়ে ফিরিয়ে নিতে চান। তিনি তাঁর মা খাদিজা(রাঃ)এঁর দেওয়া উপহার মুক্তার-হার বাহকের মারফত মুক্তিপণ হিসাবে পাঠান। মুহাম্মদ(সাঃ) যখন সেই হারটি দেখতে পান তখন খাদিজা(রাঃ) কথা মনে পড়ে ব্যকুল হয়ে পড়েন। তিনি তাঁর সাহাবীদেরকে বলেন- তোমরা যদি তাঁর স্বামীকে এবং তাঁর হারকে ফেরত দেওয়া ভাল বিবেচনা কর, তাহলে তা করতে পার। সাহাবীগণ মুহাম্মদ(সাঃ) এর মর্ম বেদনা বুঝতে পেরে তাঁর প্রস্তাবকে মেনে নেন। তিনি জায়নাব(রাঃ) প্রেরিত হারটি বাহকের হাতে ফিরিয়ে দিয়ে বললেন- এইটি জায়নাবকে ফিরিয়ে দিয়ে বলবে, সে যেন এই হারটি নিরাপদে রাখেন।

যেদিন মুহাম্মদ(সাঃ) মক্কা বিজয় করেন, তখন কোরাইশগণ তাঁর চারপাশে দাঁড়িয়ে ছিল। এমন সময় এক বৃদ্ধ মহিলা আসেন। মুহাম্মদ(সাঃ) তাঁর সাহাবিদের ছেড়ে এই মহিলাকে একপাশে নিয়ে গিয়ে নিজের গায়ের কাপড় মাটিতে বিছিয়ে দিয়ে তাতে সেই মহিলাকে বসিয়ে অনেকক্ষণ কথা বললেন। আয়েশা(রাঃ) তাঁকে জিজ্ঞাসা করলেন- এই মহিলা কে? তিনি জবাব দেন, এই মহিলা খাদিজা(রাঃ)এঁর বান্ধবী। তখন আয়েশা(রাঃ) আবার জিজ্ঞাস করেন- আপনারা কোন বিষয়ে আলাপ করলেন? তিনি বললেন- আমরা খাদিজা(রাঃ) এঁর পুরানো দিনগুলোর স্মৃতিচারণ করেছি। আয়েশা(রাঃ) তখন জানতে চাইলেন- আপনি এখনও কি সেই বৃদ্ধ মহিলার কথা স্মরণ করে চলছেন যেখানে আল্লাহ আপনাকে তাঁর চেয়ে উত্তম স্ত্রী দান করেছেন? এই কথা শুনে মুহাম্মদ (সাঃ) রাগ করে ফেলেন এবং বলেন- না, আল্লাহর কসম, তিনি আমাকে খাদিজার(রাঃ)এর চেয়ে ভাল কাউকে দান করেন নাই। মানুষ যখন আমাকে মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিতে চেয়েছে, তখন সে আমাকে সত্য বলে মেনে নিয়েছে। সবাই যখন কাফির ছিল তখন সে ছিল মুসলমান। কেউ যখন আমার সাহায্যে এগিয়ে আসেনি, তখন সে আমায় সাহায্য করেছে। তাঁর গর্ভেই আমার সন্তান হয়েছে। (আল্লামা শিবলী নুমানীর সীরাতুন নবী গ্রন্থ ২য় খণ্ড পৃঃ ৮২৮)। আয়েশা(রাঃ) বুঝতে পারলেন যে তিনি আল্লাহ রাসুলকে রাগান্বিত করে ভুল করে ফেলেছেন। তাই তিনি মুহাম্মদ (সাঃ)কে বললেন- আপনি আল্লাহর কাছে আমার ভুল সম্পর্কে ক্ষমা চান! মুহাম্মদ রাজী হোন। তিনি জানান- আপনি আল্লাহর কাজে খাদিজা(রাঃ) এঁর জন্য ক্ষমা চান। শেষে তিনি বলেন- চার জন মহিলা: মারিয়াম বিনত ইমরান, ফেরাউনের স্ত্রী আসিয়া, খাদিজা বিনত খাওয়ালিদ এবং ফাতিমা বিনত মুহাম্মদ ছাড়া কোন মহিলাই পরিপূর্ণতার স্তরে পৌছতে পারবেন না।

যারা মুহাম্মদ (সাঃ) এঁর চরিত্র নিয়ে কটাক্ষ করেন তারা মানুষের জীবনে সব চেয়ে উন্মাতাল সময় এই ২৫ বছরের সত্য ইতিহাসকে ইচ্ছাকৃত ভাবে পাশ কাটিয়ে যান। এদের মধ্যকার মূর্খরা অপপ্রচার করতে গিয়ে বলেন, মুহাম্মদ (সাঃ) নিছক অর্থের লোভে এই মহিলাকে বিয়ে করেছিলেন। মুহাম্মাদ (সাঃ) যদি অর্থ লোভ থাকত, তবে তিনি সেই সম্পদ আঁকড়ে ধরে থাকতেন, দ্বীন ও জনকল্যাণের কাজে ব্যয় করে নিঃস্ব হতেন না। তাছাড়া কোন যুবকই কোটি টাকার বিনিময়ে তাঁর যৌবনে যুবতি মেয়ের কথা না ভেবে চল্লিশোর্ধ নারীকে বিয়ে করতে রাজী হবেনা। আর মুহাম্মদ (সাঃ) তো শুধু এক মাস বা একবছরের জন্য খাদিজা (রাঃ) বিয়ে করেন নাই। দীর্ঘ ২৫টি বছর তাঁর সাথে ঘর করেছেন। সেই ২৫ বছরে একদিনের জন্য কখনও খাদিজা(রাঃ) উপর বিরক্ত হয়েছিলেন কিংবা তাঁকে বিয়ে করে সমগ্র জীবন নষ্ট হল বলে আক্ষেপ করেছিলেন এমন প্রমাণও কেউ দেখাতে পারবেনা। এমন কি খাদিজা (রাঃ) ওফাতের যে ১৫ বছর মুহাম্মদ(সাঃ) বেঁচে ছিলেন সেই সময় পর্যন্ত কেউ দেখাতে পারবেনা যে তিনি খাদিজা(রাঃ) সম্পর্কে কোন নেতিবাচক কিছু বলেছিলেন। তাছাড়া বিয়ের পর মুহাম্মদ (সাঃ) যে অর্থ বিত্তের মালিক হয়েছিলেন সেই সম্পদ অভাবী গরীব দুঃখী মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দিয়েছিলেন, দ্বীন-ইসলামের স্বার্থে ব্যয় করেছিলেন। সেই সম্পদকে তিনি ভোগ করে আরাম আয়েশে জীবন কাটিয়েছিলেন সেরূপ কোন ইতিহাস কেউ প্রমাণ করতে পারবেন না। যদি কেউ সম্পদ ভোগই না করেন তাহলে কি ভাবে তিনি অর্থের মোহে এই বিয়ে করতে পারেন? তাই এই বিয়ে কোন অর্থ বা প্রতিপত্তির মোহে নয় এই বিয়ের পিছনে মহান আল্লাহর ইচ্ছা ছিল প্রধান।
মুহাম্মদ (সাঃ) যদি সেই সময়ে কোন অল্প বয়সী মেয়ে বিয়ে করতেন তাহলে কি হত? সেই মহিলা কি মুহাম্মদ (সাঃ)এঁর ধ্যানমগ্নতার সময়ে উদ্ভূত পরিস্থিতির সামাল দিতে পারতেন? নাকি নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবে মুহাম্মদ (সাঃ) কে অস্থির করে তুলতেন? অল্প বয়সী স্ত্রীর পক্ষে কি একাকী জবল-ই-নুরের, হীরা নামক গুহায় মুহাম্মদ (সাঃ)এঁর জন্য খাদ্য পানীয় বহন করে নিয়ে যাওয়া নিরাপদ হত? মূলত এসবের পিছনে আল্লাহর পরিকল্পনাই কাজ করেছিল –যা কাফের-মোনাফেক ও অপ-প্রচারকারীরা বুঝার মত নয়।
মুহাম্মদ (সাঃ) যৌবনে একাধিক বিয়ে করতে পারতেন কিন্তু তা না করেই খাদিজা (রাঃ)এঁর সাথেই জীবনের প্রধান অংশ কাটিয়েছেন। কোনও কোনও অপপ্রচারকারী এটাও বলে যে খাদিজা (রাঃ) অর্থ-বিত্ত এবং সামাজিক প্রতিপত্তির কারণে তিনি ইচ্ছা থাকলেও বিয়ে করা সম্ভব ছিলনা। কাজেই বাধ্য হয়েই সেই সময়ে অন্য বিয়ে করতে সক্ষম হন নাই। আমি বলব, ইতিহাস পড়ুন, আর জেনে নিন সেই সময়ে সারা মক্কা জুড়ে ছিল চরম পুরুষবাদী সমাজ। এখানে উচ্চ নিম্ন বংশের মধ্যে কোন তফাৎ ছিলনা। ‘পুরুষেরা ইচ্ছেমত একাধিক বিয়ে করতে কোন সামাজিক বা আইনগত বাধা ছিল না। এর বিপক্ষে চলে যাওয়ার অধিকার নারীদের ছিলনা। কেবল তারা তুচ্ছ সম্পদ হিসাবে ব্যবহৃত হত। যেহেতু নারীদের মাধ্যমে বংশগতি রক্ষা করা হত। তাই নারীরা আইনগত ভাবে সম্পত্তির উত্তরাধিকার হলেও তাতে তারা কোনপ্রকার ক্ষমতা বা প্রতিপত্তির অধিকারী হতে পারতোনা। অনেক সময় শুধু তাদের সম্পত্তি হাতিয়ে নেবার জন্য পুরুষরা তাদের বিয়ে করত।’ (মুহাম্মদ(সাঃ) মহানবীর জীবনী-ক্যারেন আর্মস্ট্রং পৃঃ ৬৮)। মক্কার কুরাইশরা যখন তাঁকে ইসলাম প্রচার না করার স্বার্থে মক্কার সেরা সুন্দরী মেয়েদেরকে বিয়ে দেবার প্রস্তাব করেছিল তখন তিনি তা গ্রহণ করতে পারতেন। সেই ক্ষেত্রে খাদিজা (রাঃ) কোন আপত্তি খাটাতে পারতেন না। তাছাড়া প্রাপ্ত সমুদয় সম্পত্তি স্বামীকে দিয়ে দেওয়া এবং স্বামী কর্তৃক গরীব দুঃখী মানুষদের মধ্য বিলিয়ে দেওয়ার পর তো প্রভাব খাটাবার প্রশ্ন আসতে পারে কি? আসলে অপপ্রচারকারীরা সবদিকে কেবল কুদৃষ্টি নিক্ষেপ করে। ওদের চোখে ভাল কিছু পড়ে না। তাদের ক্ষুদ্র মনের প্রতিফলন সব কিছুতেই পড়ে। সবকিছুতেই তারা কুতর্ক উত্তাপন করে। এরা বিয়ের অন্তর্নিহিত ব্যাপারটি উপলব্ধি করতেও অক্ষম।

পরিশেষে বলব, ইসলামে খাদিজা (রাঃ)এঁর অবদান এবং তাঁর মূল্যায়ন বর্ণনা করে শেষ করা যাবে না। উপরে যে কয়টি ঘটনা বর্ণিত করেছি সেগুলো যদি আমরা খোলা মনে পর্যালোচনা করি তাহলে অবাক বিস্ময়ে অনেক বৃহত্তর মৌলিক বিষয় লক্ষ্য করে থাকব। আরবের সেই অন্ধকার যুগে খাদিজা(রাঃ) আত্মার উৎকর্ষ সাধনে, পরকালে মুক্তির লক্ষ্যে উদ্বুদ্ধ হন, এই পথ নিজের ও সমাজের জন্য উৎকৃষ্ট পথ হিসেবে বিবেচনা করেন, এই পথেই ব্যক্তি, সমাজ ও জাতির পরিত্রাণ নিহিত –এই সত্য উপলব্ধি করেন। শুধু তাই নয়, এই কাজে নিজের জীবন, অর্থ-বিত্ত নিয়োগ করেন। তিনি নিঃসঙ্কোচে মুহাম্মদ (সাঃ) এঁর নবুয়তে বিশ্বাস স্থাপন করেছিলেন। তাঁর মনে বিন্দুমাত্র সংশয় ও সন্দেহ ছিল না। মুহাম্মদ(সাঃ) এর নবুয়ত লাভের পূর্ব থেকে খাদিজা (রাঃ) দৃঢ় প্রত্যয়ী ব্যক্তি-সত্তা ছিলেন। মুহাম্মদের (সাঃ) চরিত্র ও আচরণে তিনি এক মহান উদ্দেশ্য লক্ষ্য করেছিলেন। তাই জিবরাঈল (আঃ) এঁর আগমনের পর ক্ষণিকের জন্যও তাঁর মনে কোন রকম ইতস্তত-ভাব দেখা দেয়নি। এসব যাবতীয় বিষয়ে খাদিজা (রাঃ) এঁর গভীর দূরদৃষ্টি ও তীক্ষ্ণ পর্যবেক্ষণ-ক্ষমতা স্পষ্ট হয়ে উঠে। নবুয়ত লাভের পূর্বে ও পরে সর্বদাই তিনি মুহাম্মদ(সাঃ) কে সম্মান করেছেন, তাঁর প্রতিটি কথা বিশ্বাস করেছেন। পঁচিশ বছরের দাম্পত্য জীবনে তিনি অনড় ব্যক্তিও ছিলেন। সেই জাহিলি যুগেও তিনি ছিলেন পুতঃ পবিত্র। তিনি কখনো মূর্তি পূজা তো করেননি এমন কি তাদের প্রসঙ্গ উত্থাপন করতেন না ।

খাদিজা (রাঃ) নবুয়তে মুহাম্মদী (সাঃ)এর উপর প্রথম বিশ্বাস স্থাপনকারী এবং তাঁর সাথে প্রথম সালাত আদায়কারী। শুধু তাই নয় তিনি ইসলামের সূচনা লগ্নে ছিলেন মুহাম্মদ (সাঃ) এর পরামর্শদাত্রী। ইসলামের ঘোর দুর্দিনে তিনি শক্তি যুগিয়েছেন। তার স্মৃতি শুধু ইসলামের ইতিহাসে নয় মানব সভ্যতার ইতিহাসে চিরদিন অমর, অম্লান হয়ে থাকবে।

জেনে নিন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কবরের উপর খেজুরের ডাল পুঁতে ছিলেন কেন?

হযরত মুহম্মদ (সাঃ) একদিন দু‘টি কবরের শাস্তি জানতে পেরে একখানা খেজুরের ডাল দুই টুকরা করে দু’টি কবরে গেড়ে দেন। ছাহাবীগণ জিজ্ঞেস করলেন, আপনি এরূপ করলেন কেন? তিনি বললেন, হয়ত ডাল দু’টি শুকানো পর্যন্ত তাদের শাস্তি হালকা হয়ে থাকবে’ (বুখারী, মুসলিম, মিশকাত হা/৩৩৮)। কিন্তু তাদের এ ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। কারণ তাদের শাস্তি হালকা হয়েছিল রাসূল (ছাঃ)-এর বিশেষ সুপারিশের জন্য। কাঁচা ডালের জন্য নয়। যা ছহীহ মুসলিমে জাবের (রাঃ) বর্ণিত হাদীছ দ্বারা প্রমাণিত। কাজেই খেজুরের কাঁচা ডাল বা অন্য কোন কাঁচা ডাল গেড়ে কবরের শাস্তি হালকা হবে বলে ধারণা করা একেবারেই ভ্রান্ত।

কেননা যদি বিষয়টি তাই হত তাহলে তিনি ডালটি চিরে ফেলতেন না। কেননা তাতে তো ডালটি দ্রুত শুকিয়ে যাবার কথা। আসল কারণ ছিল ঐ কবর দু’টিকে ঐ ডাল দ্বারা চিহ্নিত করা যে, তিনি তাদের জন্য সুপারিশ করেছেন (আলবানী, মিশকাত ১/১১০ পৃঃ; দ্রঃ ছালাতুর রাসূল ২৪২ পৃঃ)।

জেনে নিন, নবীজির (সা) নূর হযরত আদম (আ)-এর পিঠে রেখে দেন-এটি কি সহিহ হাদিস?

মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে নূরের সৃষ্টি বলে দাবীদার ভ্রষ্ট রেজভীরা তাদের পক্ষ হতে কতিপয় জাল ও মওজূ হাদিসপ্রদর্শন করিয়ে থাকে । যার মাধ্যমে তাদের দাবি মূলত কোনো ভাবেই স্বিদ্ধি লাভ করেনা। আমি তাদের সেসব জাল বর্ণনাগুলো ক্রমানুসারে উল্লেখ পূর্বক সেগুলোর জবাব দেয়ার চেষ্টা করব। ইনশাআল্লাহ।

রেজভিরা তাদের পক্ষ হতে নিচের জাল ও মওজূ হাদিসটি প্রদর্শন করিয়ে থাকে। যেমন –

“আসসীরাতুল হালাবিয়্যাহ” কিতাবে আছে

ﻭ ﻓﻲ ﺭﻭﺍﻳﺔ ﻟﻤﺎ ﺧﻠﻖ ﺍﻟﻠﻪ ﺁﺩﻡ ﺟﻌﻞ ﺫﺍﻟﻚ ﺍﻟﻨﻮﺭ ﻓﻲ ﻇﻬﺮﻩ. ﺍﻟﺴﻴﺮﺓ ﺍﻟﺤﻠﺒﻴﺔ

অর্থাৎ যখন আল্লাহ তায়ালা আদম আঃ -কে সৃষ্টি করেছেন তখন হুজুর সাঃ এর নূর তাঁর পিঠে রেখে দেয়া হয়েছে।

আপনি যদি ভাল করে বর্ণনটির অর্থের প্রতি লক্ষ্য করেন তাহলে বিদয়াতীদের দাবীর সাথে উক্ত বর্ণনাটি কতটা অসামঞ্জস্য তা পরিস্কার উপলব্ধি করতে পারবেন।

কারণ, বর্ণনাটির বক্তব্য হল, নবীজির সাঃ নূর মুবারক হযরত আদমের আঃ পিঠে রেখে দেয়া হয়েছে।’

এ বর্ণনাটি যদিও বিশুদ্ধ সূত্রে হাদিসের কোনো কিতাবে উল্লেখ নাই, তথাপি একে সহীহ ধরে নেয়া হলেও বিপত্তি বাধার কথা নয়।

কারণ, সেখানে নূর শব্দের সুস্পষ্ট কোনো অর্থ উল্লেখ নেই।

কাজেই মুহাক্কিক উলামাদের ব্যাখ্যার আশ্রয় নিয়ে বলা যায় যে, এ নূরে মুহাম্মদী থেকে উদ্দেশ্য হল ‘রূহে মুহাম্মদী’। তাহলে আর কোনো সমস্যা থাকেনা। যার ফলে নবীজিকে সাঃ নূরের তৈরি বলার যে উদ্ভট প্রয়াস লক্ষ্য করা যাচ্ছে তারও পুণঃবৃত্তি ঘটবে না।

আদম আঃ এর পিঠে রক্ষিত নূরে মুহাম্মদী থেকে ‘রূহে মুহাম্মদী’ উদ্দেশ্য নেয়া ছাড়া দ্বিতীয় কোনো ব্যাখ্যা বিবেকগ্রাহ্য ও ন্যায় সঙ্গত নয়। কারণ, মাতৃগর্ভ হল মানবজাতির দেহের উৎস। তার পূর্বে কেবলমাত্র তাদের রূহগুলোই “রূহের জগতে” বিদ্যমান ছিল আর দেহগুলো সৃষ্টি হয়েছে পরে।
নবীজি সাঃ উনিও এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম নন।

√ রূপকার্থে রূহকেও নুর বলা যায়। তার দলিল-

আল্লামা কাসতালানী রহঃ তিনি স্বীয় কিতাব “মাওয়াহিবে লাদূনিয়া”র ৮ম পৃষ্ঠায় নূরে মুহাম্মদীর বর্ণনা দিতে গিয়ে লিখেছেন

ﺍﻥ ﺍﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻲ ﻟﻤﺎ ﺧﻠﻖ ﻧﻮﺭ ﻧﺒﻲ ﻣﺤﻤﺪ ﺻﻠﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﺍﻣﺮﻩ ﺍﻥ ﻳﻨﻈﺮ ﺍﻟﻲ ﺍﻧﻮﺍﺭ ﺍﻻﻧﺒﻴﺎﺀ. ﻣﻮﺍﻫﺐ ﻟﺪﻭﻧﻴﺔ
٨

অর্থাৎ “আল্লাহ তায়ালা যখন নূরে মুহাম্মদী সৃষ্টি করলেন তখন তাকে আনওয়ারে আম্বিয়া (অন্যান্য সকল নবীর নূর মোবারক) -এর প্রতি দৃষ্টি নিবদ্ধ করতে বললেন।”

এখানে نور محمدي (নূরে মুহাম্মদী) থেকে অবশ্যই রূহে মুহাম্মদী উদ্দেশ্য। যদি এ কথা মানতে কাহারো দ্বিধা লাগে তাহলে তার নিকট আমার প্রশ্ন যে, “আনওয়ারে আম্বিয়া” থেকে আপনি কী উদ্দেশ্য নিবেন?

অথচ, তিনি বিশ্বনবী ক্ষেত্রে যেরূপ “নূর” শব্দ ব্যবহার করেছেন, সেরূপ সকল নবীদের ক্ষেত্রেও বহুবচন শব্দ
“আনওয়ার” ব্যবহার করেছেন।

√ রূহ মোবারককে রূপকার্থে নূর বলা যায়। তার অনেকগুলো দলিলের ভেতর নিম্নোক্ত দলিলটি অন্যতম।

১।
মোল্লা আলী কারী রহঃ (মৃত১০১৪ হিঃ) ঐ জাল হাদিসটির “নূর” -কে ‘রূহ’ অর্থে ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

তাঁর ভাষায়:

ﻗﻮﻟﻪ ﺍﻭﻝ ﻣﺎ ﺧﻠﻖ ﺍﻟﻠﻪ ﻧﻮﺭﻱ ﻭ ﻓﻲ ﺭﻭﺍﻳﺔ ﺭﻭﺣﻲ ﻫﻤﺎ ﻭﺍﺣﺪ ﻓﺎﻥ ﺍﻻﺭﻭﺍﺡ ﻧﻮﺭﺍﻧﻴﺔ ﺍﻱ ﺍﻭﻝ ﻣﺎ ﺧﻠﻖ ﺍﻟﻠﻪ ﻣﻦ ﺍﻻﺭﻭﺍﺡ ﺭﻭﺣﻲ. ﻣﺮﻗﺎﺓ ﺷﺮﺡ ﻣﺸﻜﻮﺓ: ١ / ٢٩١

অর্থাৎ বর্ণনায় রয়েছে যে, আল্লাহপাক সর্বপ্রথম আমার নূর সৃষ্টি করেছেন। এভাবে অন্য আরেকটি বর্ণনায় রয়েছে যে, আল্লাহপাক সর্বপ্রথম আমার রূহ সৃষ্টি করেছেন। অতএব উভয় বর্ণনার মর্মার্থ একই। যেহেতু রূহই নূর। অর্থাৎ আল্লাহপাক সর্বপ্রথম আমার নূর তথা রূহ সৃষ্টি করেছেন।
{দেখুন, মেরকাত ১ম খন্ড, পৃষ্ঠা নং ২৯১}।

২।
জগৎ বিখ্যাত শাইখুল ইসলাম আল্লামা ইবনে কাইয়্যুম আলজাওযিয়াহ রহঃ (মৃত৭৫১হিজরী) তাঁর সুবিখ্যাত কিতাব “রূহ” গ্রন্থের ২০৬ নং পৃষ্ঠায় লিখেছেন

ﻭﻗﺎﻝ ﺑﻌﻀﻬﻢ ﺍﻻﺭﻭﺍﺡ ﻧﻮﺭ ﻣﻦ ﺍﻧﻮﺍﺭ ﺍﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻲ. ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺮﻭﺡ ٢٠٦

অর্থাৎ ‘মুহাদ্দিসগণের অনেকে রূহ সমূহকে আল্লাহ তায়ালার নূর বলে আখ্যায়িত করেছেন।’

কাজেই দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতে পারি যে,
নূরে মুহাম্মদী অর্থ রূহে মুহাম্মদী তথা মুহাম্মদ
সাঃ এর রূহ মোবারক।

নূরের উপরোক্ত বর্ণনাটিকে এভাবে ব্যাখ্যা করার মাধ্যমে সকল প্রকারের বিদয়াত ও শিরিকি আকিদা বিশ্বাস রদ করা সম্ভব।

সব চেয়ে মজার ব্যাপার হল, হাদিস বিশারদগণ একেও ভিত্তিহীন এবং মানুষের
মনগড়া বর্ণনা বলে আখ্যায়িত করিয়াছেন।

ইবনে তাইমিয়া রহঃ, ইমান যাহাবী ও ইবনে কাসির রহঃ সহ অনেকে এরূপ মত ব্যক্ত করেছেন।

(বিস্তারিত তানযিহুশ শারিয়াতুল মারফূ’আ ২৭৩।)