পাবনায় আহত মেয়ের শ্বশুরবাড়ি থেকে মার খেয়ে পালাল বাবা

পাবনায় এক গৃহবধূ স্বামী ও শ্বশুরবাড়ি এর লোকজনের নির্যাতন এ আহত হয়েছেন। আহত মেয়েকে নিতে এসে জামাই বাড়ির লোকজনের কাছে মার খেয়ে মেয়ের বাবা পালাতে বাধ্য হন।

পরে আহত মেয়েটির বাবা থানায় গিয়ে অভিযোগ জানালে পুলিশ ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

৩০ জুলাই শুক্রবার বিকেলে পাবনার চাটমোহর উপজেলার কুমারগাড়া গ্রামে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

নির্যাতিত মেয়েটির বাবা থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ খুব দ্রুত ঘটনা স্থলে পৌঁছায়। পুলিশকে দেখে ওই বাড়ির লোকজন গৃহবধূর স্বামী জনি ও শ্বশুর পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে মেম্বার আনোয়ার হোসেন বলেন যে জনি লুৎফর রহমানের ছেলে। জনি সাথে তার স্ত্রীর দুই বছর আগে বিবাহ হয়।তাদের একটি সন্তান আছে। কিন্তু জনি যৌতুকের জন্য তার স্ত্রীর ওপর মাঝে মাঝে অত্যাচার করতো।

কুমারগাড়া গ্রামে লোকজন জানায়,জনি এর আগে অনেক বিয়ে করেছে।জনি খুব বাজে মানুষ। সে নানা কারণে তার স্ত্রীকে ধরে মারতো।বিয়ের কিছু দিন পর থেকে সে যৌতুকের জন্য তার স্ত্রী কে মারতে থাকে।যৌতুকের টাকা না পাওয়ায় জনি তার নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

এসআই মমিনুর রহমান বলেন, জনি তার স্ত্রীকে মারধর করতে থাকে। যৌতুকের টাকা নেওয়ার জন্য সে তার স্ত্রীর ওপর সব সময় নির্যাতন করতে থাকে।

৩০ জুলাই বিকেলে যৌতুকের টাকার জন্য জনি সহ তার মা -বাবা ঔ গৃহবধূর ওপরে নির্যাতন করতে থাকে।

মেয়েটির বাবা মেয়েটিকে নিতে আসলে তার বাবা কে নানা ধরনের হুমকি দেয় জনি ও জনির বাবা। আহত মেয়েটির বাবা কোনো উপায় না পেয়ে থানায় অভিযোগ করেন।তখন পুলিশ গিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ওসি মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, মেয়েটির স্বামী জনি তার স্ত্রী কে সব সময় নির্যাতন করে। সে দিন মেয়েটিকে তার স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন মিলে মেয়েটিকে মারধর করে।মেয়েটি মার সহ্য করতে না পেরে অনেক বার পালানোর চেষ্টা করে কিন্তু মেয়েটি অসুস্থ থাকার কারণে পালাতে পারেনি।

তবে আসামি জনির বাড়ি থেকে চাপাতি, ছুরি, রামদা, হাসুয়াসহ কিছু দেশীয় অস্ত্র জব্দ করা হয়। মেয়েটির অবস্থা কিছু ভালো হলে আসামি জনির বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রিপোর্ট২৪বিডি/এইচ এ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *